অসময়ে যদি খিদে পায়? তবে কী?

রাত জেগে কাজ করছেন বা পড়ছেন আর ঠিক এই সময় পেয়ে বসলো খিদে? কিংবা দুপুরে খাবার পরও আবারও খিদে পেল? এই সময়গুলোতে ভারি খাবার খাওয়া আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য মোটেও ভালো নয়। কারণ এতে ক্ষুধা নিবারণ হলেও তা আপনার ওজন বেড়ে যাওয়া, ডায়াবেটিস হওয়ার মতো বিভিন্ন রোগ সৃষ্টি করে। তাই সুস্থ থাকতে হলে খাওয়া চাই এমন স্ন্যাকস জাতীয় হালকা খাবার যা পেট ভরার পাশাপাশি যোগাবে পুষ্টিও।

চলুন জেনে নিই কি কি খাবার আমাদের রাখবে সুস্থ-সবল-

দুগ্ধজাত খাবার দুধ বা দুগ্ধজাত খাবারে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ক্যালসিয়াম এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন এ, বি ও ডি যা সুস্বাস্থ্যের জন্য অতীব প্রয়োজনীয় একটি খাবার। তাই অসময়ে খিদা পেলে দুধ, দই বা পনির খেতে পারেন।

বাদাম যেকোনো ধরনের বাদামে রয়েছে প্রচুর পরিমাণের ফাইবার যা আপনাকে ফিট থাকতে সাহায্য করবে। এটি হার্টের জন্য যেমন গুরুত্বপূর্ণ ঠিক তেমনই ওজন কমাতে সাহায্য করবে।

আপেল লাল বা সবুজ আপেল স্লাইস করে কেটে তার মধ্যে পিনাট বাটার লাগিয়ে খেতে পারেন। এটি যেমন স্বাস্থ্যকর তেমনেই খিদে কমাতে সাহায্য করবে।

ডিম খিদে নিবারণের জন্য ডিমের তুলনা হয় না। তাই খিদে পেলেই একটি বা দুটি সিদ্ধ ডিম খেয়ে নিন। এতে খিদে দূর হয়ে যাবে।

কলা আপেলের মতো কলার সঙ্গে পিনাট বাটার মিশিয়ে একটি পুষ্টিকর স্ন্যাকস বানানো যায়। কলাতে প্রচুর আয়রন থাকে এবং এটি খেলে আপনার অনেকক্ষণ খিদে লাগবে না এবং এতে ক্যালরি ও অনেক কম থাকে।

পপকর্ন হালকা খাবার হিসেবে পপকর্নের তুলনা হয় না। এতে রয়েছে ফাইবার-প্রোটিন যা আপনার খিদে দূর করবে এবং ওজনও বাড়তে দিবে না।

কর্নফ্লেক্স বিভিন্ন ফল, দুধ ও মধু দিয়ে কর্নফ্লেক্স খেতে পারেন আপনি। এটি সুস্বাদু ও স্বাস্থ্যকর দুটিই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *