আইপিএলে যাদের ধরে রেখেছে দলগুলো

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) এ বছর একাদশতম বর্ষ হতে চলেছে। প্রথম দশ বছরে হাজারো রেকর্ড তৈরি হয়েছে আইপিএলে। টি-টোয়েন্টি লিগ হিসাবে সারা ক্রিকেট বিশ্বের কাছে প্রথম পছন্দ হিসেবে উঠে এসেছে ভারতীয় ক্রিকেট নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (বিসিসিআই) পরিচালিত এই টুর্নামেন্ট। এ বছরও একই রকম উন্মাদনা থাকবে বলে আশাবাদী দর্শকরা। আজ বৃহস্পতিবার রিটেনশন প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে।

এক নজরে দেখে নিবো দলগুলো কাদের ধরে রাখলো। এছাড়া কোন ক্রিকেটাররা রাইট টু ম্যাচ (আরটিএম) করে খেলবেন:

চেন্নাই সুপার কিংস (সিএসকে)

শাস্তি কাটিয়ে দুই বছর পর ফিরেছে দলটি। সিএসকে রিটেনশন করে ধরে রেখেছে মহেন্দ্র সিং ধোনি, সুরেশ রায়না ও রবীন্দ্র জাদেজা। আরটিএমে দুই জন থাকতে পারবে দলটির হয়ে।

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু (আরসিবি) 

এ বছর নতুন করে ঝাঁপিয়ে পড়তে চলেছে আইপিএল জেতার লক্ষ্যে। রিটেনশন করে ভারতের বিরাট কোহলি ও সরফরাজ খান। এছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকার এবি ডিভিলিয়ার্স কে ধরে রেখেছে দলটি। এ দলটিও দুইজনকে আরটিএম করে খেলাবে আরসিবি।

রাজস্থান রয়্যালস (আরআর)

সিএসকের মতো রাজস্থান রয়্যালসও দুই বছরের শাস্তি কাটিয়ে ফিরছে এবারের আসরে। শুধু স্টিভ স্মিথকে রিটেনশন করে আরটিএম করেছে তারা।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ (এসএইচ)

ডেভিড ওয়ার্নার ও ভুবনেশ্বর কুমারকে রিটেন করছে ২০১৬ সালের চ্যাম্পিয়ন সানরাইজার্স। গত দুই আসরে খেলা বাংলদেশের কাটার মাস্টার খ্যাত মুস্তাফিজুর রহমানকে ছেড়েছে তারা।

কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব (কেপি)

শুধু স্পিনিং অলরাউন্ডার আক্সার প্যাটেলকে ধরে রেখেছে পাঞ্জাবের দলটি।

দিল্লি ডেয়ারডেভিলস (ডিডি)

একবারও আইপিএল জেতেনি দলটি। দুইবার সেমিফাইনালে উঠেছে। আইপিএল জিততে মরিয়া দিল্লি ঋষভ পন্থ, শ্রেয়স আইয়ার ও প্রোটিয়া অলরাউন্ডার ক্রিস মরিসকে দলের জন্য রেখে দিয়েছে তারা।

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স  (এমআই)

অধিনায়ক রোহিত শর্মাকে রিটেন করছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। এছাড়া হার্দিক পাণ্ডিয়া ও জসপ্রীত বুমরাহকেও রেখেছে তারা।

কলকাতা নাইট রাইডার্স (কেকেআর)

কেকেআর এ বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজের দুই তারকা সুনীল নারাইন ও আন্দ্রে রাসেলকে ধরে রেখেছে। দীর্ঘ সাত বছর ধরে খেলা সাকিব আল হাসানকে ছেড়ে দিয়েছে দলটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *