আগামী এক মাসেই রাজনীতিতে পরিবর্তন: মওদুদ

রাজনীতিকে ‘গতিশীল বিজ্ঞান’ আখ্যায়িত করে পরিস্থিতি অনুযায়ী আন্দোলনের উপযুক্ত কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ।

শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে চেতনায় বাংলাদেশ নামক সংগঠনের উদ্যোগে ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন: কোন পথে বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার মাধ্যমে উপযুক্ত কর্মসূচিতেই সরকারে পরিবর্তন আনা সম্ভব।

“পাঁচটা দাবিতে দেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। … পরিস্থিতি বলে দেবে কী ধরনের কর্মসূচি দিতে হবে। গণমাধ্যমের অনেক বন্ধুরা জিজ্ঞাসা করেন কী ধরনের কর্মসূচি দেবেন, কখন দেবেন। আমি বলতে চাই, এগুলোর সময় নির্ধারণ করা সম্ভবপর নয়।

“আগামী এক মাসেই আপনারা অনেক পরিবর্তন দেখতে পারবেন। তারা (সরকার) যতই প্রচারণা করুক না কেন একতরফাভাবে; তাতে কোনো লাভ নাই।”

মওদুদ বলেন, “ঐক্য নষ্ট করার জন্য সরকার অনেক ষড়যন্ত্র করছে। জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া আরো শক্তিশালী হবে, আরো জোরদার হবে এবং সারাদেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করবে।

“একটা স্বৈরাচার সরকারকে অপসারণ করতে হলে জাতীয় ঐক্যের কোনো বিকল্প নাই। সেজন্য এই ঐক্যভাবে সমস্ত গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল, নেতা, শ্রেণি সবাইকে সংযুক্ত করে আমাদের এই দাবি আদায় করতে হবে।”

সরকার সংলাপে বসতে বাধ্য হবে বলেও মনে করেন মওদুদ।

“সরকারে থাকলে সবসময় মনে করে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত আমরা বোধহয় চিরদিনের জন্য সরকারে আছি। রাজনীতি একটি গতিশীল বিজ্ঞান। কিচ্ছু করতে পারবেন না। এক মিনিটের ব্যবধানে আপনারা বাধ্য হবেন সংলাপে বসতে, বাধ্য হবেন আমাদের দাবি মেনে নিতে।

“তার কারণ, যদি জোর করে আপনারা মনে করেন সরকারে থাকবেন এবার সেটা সম্ভবপর হবে না।”

রাজধানীর হাতিরঝিল থানার মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ৫৫ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলার সমালোচনা করে তিনি বলেন, “কাল্পনিক, ভূতুড়ে, মিথ্যা, যে ঘটনা ঘটেনি তাকে সাজিয়ে একটা মামলা দায়ের করা হয়েছে।”

সংগঠনের সভাপতি দোহার উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শামীমা রহিমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল মান্নান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য ফরহাদ হালিম ডোনার, সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ারুল আজীম, সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন প্রমুখ।

Leave a Reply