আজই শাকিব-অপুর চূড়ান্ত বিচ্ছেদ!

অবশেষে আগামীকাল সোমবার চূড়ান্ত বিচ্ছেদ ঘটছে চিত্রনায়ক শাকিব খান-অপু বিশ্বাসের। এদিন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) শাকিব-অপুর তৃতীয় ও শেষ শুনানি হবে। এর আগের দুটি শুনানিতে শাকিব আসেননি। অপু প্রথম শুনানিতে এলেও দ্বিতীয়টাতে আসেননি। সমঝোতার কোনো সুযোগ নেই দেখে তিনিও বিচ্ছেদ মেনে নেন।

গত বছরের ২২ নভেম্বর অপুকে বিবাহ বিচ্ছেদের চিঠি পাঠান শাকিব। গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়, তিন মাস পর কার্যকর হবে বিবাহ বিচ্ছেদ। সেই হিসাবে ২২ ফেব্রুয়ারি শাকিবের বিবাহ বিচ্ছেদের চিঠি পাঠানোর তিন মাস পূর্ণ হয়।

তবে ওই সময় শাকিব-অপুর বিবাহ বিচ্ছেদ কার্যকর হয়নি বলে জানান ঢাকা সিটি করপোরেশনের (অঞ্চল-৩) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত হোসেন।

এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, শাকিব খান যেদিন স্বাক্ষর করেছিলেন, সেদিন থেকে তিন মাস পর কার্যকর হবে ব্যাপারটা এমন নয়। আমরা সিটি করপোরেশন তাদের তিন মাসে তিনবার ডাকব, সেই তৃতীয়বার বিষয়টির ফয়সালা হবে।

তিনি আরও বলেন, আগামী ১২ মার্চ তৃতীয় ও শেষবারের জন্য তাদের আবারও ডাকা হয়েছে। এদিন যদি তারা না উপস্থিত হন, তাহলে বিবাহ বিচ্ছেদ কার্যকর হয়ে যাবে।

এমন মুহুর্তে শাকিব অপু জুটির ভক্তদের মনে প্রশ্ন উঠেছে বাবা-মার সম্পর্কের এ ক্রাইসিসে কার কাছে থাকবে মাত্র এক বছরেই তারকা বনে যাওয়া আব্রাম খান জয়। মায়ের কাছে না বাবার কাছে? যদিও ডিভোর্স বিষয়ে শাকিবের আইনজীবী সিরাজুল ইসলাম জানিয়েছেন সন্তানের পুরো দায়ভার নেবে শাকিব খান। পাশাপাশি অপুর কাবিনের সাত লাখ টাকাও সে পরিশোধ করবেন।

তবে দায়ভার নিলেও আব্রাম কার কাছে থাকবে সে বিষয়ে হয়তো আদালত পর্যন্ত গড়াতে পারে বিষয়টি। ছেলের খরচ শাকিব খান বহন করলেও আব্রাম অপুর কাছেই থাকবে। আব্রাম খান জয় প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত তার উপর পূর্ণ অধিকার থাকবে মা অপু বিশ্বাসের।

বিষয়টি নিয়ে শাকিবের আইনজীবী আরও জানান, ‘অপু বিশ্বাস যদি আরেকটি বিয়ে করেন তাহলে শাকিব কিন্তু তার ছেলেকে ডিজায়ার করেন’।

এখন দেখার বিষয়, দেয়া-নেয়ার হিসেবে কোন দিক দিয়ে জয়ী কিংবা পরাজিত হন অপু বিশ্বাস। আর আব্রাম খান জয়ের ভাগ্যেও কী পরিণতি ঘটে!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *