আফ্রিদির থাপ্পড়ে ফিক্সিংয়ের কথা স্বীকার করেছিলেন আমির

মোহাম্মদ আমির। ক্রিকেট দুনিয়ায় এক অসাধারণ বোলিং প্রতিভার নাম। এই নামের সঙ্গে লেগে আছে কলঙ্কও। স্পট ফিক্সিংয়ের কলঙ্ক। একবারের সেই অপরাধ কতবার যে সামনে এসেছে তার ইয়ত্তা নেই। বিশ্বকাপের ভরা মৌসুমে সেই আমিরের সেই কলঙ্কিত অধ্যায়ে কথা আবারো উঠলো।
পাকিস্তানের প্রাক্তন ক্রিকেটার আব্দুর রাজ্জাক সে সময়কার একটি ঘটনার সাক্ষী। একটি নিউজ চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে রাজ্জাক বলেন, শাহিদ আফ্রিদির একটা থাপ্পড় খেয়ে নিজের অপরাধ স্বীকার করেছিলেন আমির। প্রায় নয় বছর আগের কলঙ্কিত সেই অধ্যায়ে নতুন কর আলো ফেললেন রাজ্জাক।
শুরুতে বাদ পড়লেও শেষ পর্যন্ত ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের দলে জায়গা পেয়েছেন আমির। এই ইংল্যান্ডের মাটিতেই নয় বছর আগে স্পট ফিক্সিং কাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন তিনি।
২০১০ সালে ইংল্যান্ড সফরে গিয়ে লর্ডসে চতুর্থ ও শেষ টেস্টে ইচ্ছা করে নো বল করেন মোহম্মদ আসিফ ও আমির। পাকিস্তানের টেস্ট দলের অধিনায়ক তখন সালমান বাট। তিনিও এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। পরে স্পট ফিক্সিং কাণ্ডে নিষিদ্ধ করা হয় এ তিন ক্রিকেটারকে। ২০১১ সালে ইংল্যান্ডের আদালতে নিজের অপরাধের কথা স্বীকার করেন আমির। তার আগে তখনকার অধিনায়ক আফ্রিদি আলাদা করে কথা বলেছিলেন আমিরের সঙ্গে। সে খানে উপস্থিত ছিলেন রজ্জাকও।
কী ঘটেছিল সে দিন? একটি নিউজ চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রাজ্জাক বলেন, ‘আফ্রিদি আমাকে ঘরের বাইরে যেতে বলেছিল। আমি বেরিয়ে গিয়েছিলাম ঘর থেকে। কিছু ক্ষণ পরেই একটা জোরালো থাপ্পড়ের শব্দ শুনতে পাই। এর পরেই আমির পুরো সত্যিটা জানায়।’
পাঁচ বছরের নির্বাসন কাটিয়ে ক্রিকেটে ফিরেছেন তিন পাক ক্রিকেটারই। তবে আমিরই শুধু দেশের হয়ে খেলছেন