আল আমিন বৈধ, সঙ্গে সতর্কবার্তা

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের পেসার আল আমিন হোসেনের বোলিংকে অবৈধ ঘোষণা করে বিসিবি। গত ২৮ নভেম্বর বিপিএলে খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে ম্যাচে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছিল তার বোলিং অ্যাকশন। পরে কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন ও বিকেএসপির কোচ মাসুদ হাসানের সঙ্গে এই পেসার অ্যাকশন শোধরানোর কাজ করেন বিকেএসপিতে।

অ্যাকশন শুধরে গত রোববার মিরপুর একাডেমি মাঠে ক্যামেরার সামনে বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা দেন এই পেসার। আজ বৃহস্পতিবার সেই পরীক্ষার ফলাফল জানান বিসিবির বোলিং অ্যাকশন রিভিউ কমিটির প্রধান মোহাম্মদ জালাল ইউনুস। পাশাপাশি আল আমিনের জন্য সতর্কবার্তাও দেন।

জালাল ইউনুস বলেন, কোচ সালাউদ্দিন ও বিকেএসপির একজন কোচের সঙ্গে ২৮ দিন কাজ করেছে আল আমিন। পরীক্ষা দেয়ার পর আমরা তার বোলিংয়ের ভিডিও পর্যালোচনা করেছি। সেখানে ১৫ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেলে যে বোলিং করার কথা, তার চেয়ে অনেক কম আছে। অনেক উন্নতি করেছে সে। বোঝা যাচ্ছে ভালো কাজ করেছে।

তবে ভবিষ্যতের জন্য তাকে সতর্কও করে দিয়েছে রিভিউ কমিটি।

দুই বছরের মধ্যে দুইবার রিপোর্টেড হলে এক বছর খেলার সুযোগ থাকবে না। সেটা সে ভালো করেই জানে। সে কথা দিয়েছে, আর সমস্যা হবে না। নিজেই স্বীকার করেছে, দু-একটি ডেলিভারিতে তার সমস্যা ছিল। সেগুলো সে কাটিয়ে উঠেছে। মনে হয় না ভবিষ্যতে আর সমস্যায় পড়তে হবে তাকে। খুব শিগগিরই আমরা তাকে একটা অনাপত্তিপত্র দিয়ে দিব।

বোলিং অ্যাকশন বৈধ হওয়ার ফলে বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) চলতি আসর ও ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ক্রিকেটে অংশ নিতে পারবেন ২৮ বছর বয়সী এই ডানহাতি পেসার।

এদিকে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে আল আমিন বলেন, আমি জানতাম আমার বোলিংয়ে বড় কোনো সমস্যা নেই। হয়ত অসতর্কতাবশত দুই-একটি বল হয়ে গেছে। আর এমন ভুল হবে না।

২৮ দিন কাজ করার কথা বলা হলেও আল আমিন সত্যিকার অর্থে কাজ করতে পেরেছেন দুই সপ্তাহ। বাকি দুই সপ্তাহ তাকে যুদ্ধ করতে হয়েছে ডেঙ্গুর সঙ্গে। বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা দিয়েছিলেন ডেঙ্গু থেকে উঠেই।

তার সঙ্গে কাজ করার পরই আশাবাদী ছিলেন কোচ সালাউদ্দিন। পরীক্ষার দিন তিনি বলেছিলেন, অ্যাকশন শোধরানোর পর গতি বেড়েছে আল আমিনের। বেশ ভালো কাজ হয়েছে, আশা করি সে ভালোভাবে উতরে যাবে। অ্যাকশন নিয়ে কাজ করায় ওর জন্য ভালোই হয়েছে। কিছুদিন আগে ওর রানআপ কিছুটা ছোট করে দেয়া হয়েছিল। তাই ডেলিভারি স্ট্রাইডে একটু বেশি জোর লাগত। সে কারণে অ্যাকশনের সমস্যা হয়ে থাকতে পারে।

তিনি আরো বলেন, আমি ওর রানআপ নিয়ে একটু কাজ করেছি। এতে লাভ হয়েছে, ওর গতি বেড়েছে। আর ডেলিভারি স্ট্রাইডে ওর পেছনের পায়ের অবস্থানটা একটু বদলে দিয়েছি।

এর আগে ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের প্রথম টেস্টে আল আমিনের বোলিং অ্যাকশন নিয়ে অভিযোগ উঠেছিল। পরে ওই বছরের নভেম্বরে চেন্নাইয়ে বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ফেরেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। বাংলাদেশের হয়ে ৬টি টেস্ট, ১৪টি ওয়ানডে ও ২৫টি টি-টুয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন ২৭ বছর বয়সী এই পেসার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares