আশ্বাসে স্থগিত অধিভুক্ত ৭ কলেজের আন্দোলন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন দাবির বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এর পরিপ্রেক্ষিতে আন্দোলন সাময়িক স্থগিত করেছেন শিক্ষার্থীরা।

অধিভুক্ত কলেজের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে তাদের দাবির বিষয়ে উদ্যোগ নেয়া হয় বলে বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন দাবি নিয়ে চলমান আন্দোলনের প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। শিক্ষার্থীদের এসব দাবির পরিপ্রেক্ষিতে জানানো যাচ্ছে যে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে সকল শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত হয়েছে তাদের কিছু জটিলতার কারণে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনায় সাময়িক অসুবিধা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে তাদের এসব সমস্যা সমাধান করার উদ্যোগ নিয়েছে।

এতে বলা হয়, অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৯০ কার্যদিবসের মধ্যে সকল বিষয়ের ফলাফল প্রকাশ করার ব্যাপারে ইতোমধ্যে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। যে সকল বিষয়ে অধিক হারে অকৃতকার্য হয়েছে, তদবিষয়ে আবেদনক্রমে পুনর্মূল্যায়নের ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাত কলেজের একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে স্বতন্ত্র সেল গঠন করা হয়েছে বলে উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ভবিষ্যতে সাত কলেজের জন্য স্বতন্ত্র নতুন ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। অধিভুক্ত সাত কলেজের সেশনজট নিরসনকল্পে ‘ক্রাশ প্রোগ্রাম’ বিষয়ে কলেজ অধ্যক্ষদের সাথে আলোচনাক্রমে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তাদের জন্য একাডেমিক ক্যালেন্ডার তৈরির কাজও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০১৬ সনের ৪র্থ বর্ষ অনার্স পরীক্ষার ফলাফল (সি.জি.পি.এ সমন্বয় করে) ইতোমধ্যেই প্রকাশ করা হয়েছে। ডিগ্রি ১ম বর্ষ ২০১৭ পরীক্ষার রুটিনও প্রকাশিত হয়েছে। মাস্টার্স ২০১৬ অনলাইনে ফরম পূরণ শুরু হবে আগামী ২৮ এপ্রিল এবং পরীক্ষা শুরু হবে ১৭ জুন থেকে। অনার্স ২য় বর্ষ ২০১৮ পরীক্ষা শুরু হবে আগামী ১৯ মে।

আগামী ২৮ এপ্রিল উপাচার্যের সভাপতিত্বে ৭ কলেজের অধ্যক্ষদের সাথে এক সভা অনুষ্ঠিত হবে এবং এ সভা থেকে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান কল্পে করণীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

এতে বলা হয়, শিক্ষার্থীদের যে কোন ধরনের একাডেমিক ভোগান্তি লাঘবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সকল নিয়মতান্ত্রিক পন্থা অবলম্বন করবে। বিজ্ঞপ্তিতে জনভোগান্তি নিরসনে শিক্ষার্থীদেরকে নিজ নিজ ক্যাম্পাসে থাকার জন্য শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে আন্দোলন সাময়িক স্থগিত:

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের আশ্বাসের পর অবরোধ সাময়িক স্থগিত করেন পাঁচ দফা দাবিতে আন্দোলনরত সরকারি সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা।

বুধবার আন্দোলনের দ্বিতীয় দিনে বেলা সোয়া ১টার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. একেএম গোলাম রব্বানী আন্দোলনকারীদের দাবি পূরণে দশদফা লিখিত আশ্বাস দেন।

প্রক্টরের আশ্বাসে আন্দোলনকারীরা এদিনের মত তাদের কর্মসূচি সাময়িকভাবে স্থগিত করেন। তাদের পরবর্তী কর্মসূচি বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় ঢাকা কলেজের ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করে ঘোষণা হবে বলে শিক্ষার্থীরা জানান।

এর আগে সকাল ১১টার দিকে শিক্ষার্থীরা পাঁচদফা দাবিতে নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করে আন্দোলন করেন।

সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হলো- ১. পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে ত্রুটিমুক্ত ফলাফল প্রকাশসহ একটি বর্ষের সকল বিভাগের ফলাফল একত্রে প্রকাশ করা, ২. ডিগ্রী, অনার্স, মাস্টার্স সকল বর্ষের ফলাফল গণহারে অকৃতকার্য হওয়ার কারণ প্রকাশসহ খাতার পুনর্মূল্যায়ন করা, ৩. সাত কলেজ পরিচালনার জন্য স্বতন্ত্র প্রশাসনিক ভবন করা, ৪. প্রতিমাসে প্রত্যেকটা বিভাগে প্রতি কলেজে দুইদিন করে মোট ১৪ দিন ঢাবির শিক্ষকদের ক্লাস নেয়া এবং ৫. সেশনজট নিরসনের লক্ষ্যে একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রকাশসহ ‘ক্রাশ প্রোগ্রাম’ চালু করা।