ইসলামি দলগুলোর প্রতি এরশাদের আহ্বান

আগামী জাতীয় নির্বাচনের আগেই সব ইসলামি দলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, রাজনৈতিক দলগুলোকে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

এরশাদ বলেন, ইসলামি দলগুলো ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচন করলে বর্তমান সরকারকে পরাজিত করে একটি আধুনিক ও মানবিক রাষ্ট্র গঠন করা সম্ভব হবে।

তিনি বলেন, দেশে উন্নয়নের মহোৎসবের নামে দুর্নীতির জোয়ার চলছে। সন্ত্রাস ও মাদকের কারণে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে দেশ। এর থেকে পরিত্রাণের জন্য প্রয়োজন সরকার পরিবর্তন। এ সরকার পরিবর্তনের জন্য সব রাজনৈতিক দল, বিশেষ করে ইসলামি দলগুলোকে সরকারবিরোধী আন্দোলনের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে সম্মিলিত জাতীয় জোটের অন্যতম প্রধান শরিক বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট আয়োজিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এরশাদ এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, একটি জাতিকে ধ্বংস করতে শিক্ষাব্যবস্থা ও যুবসমাজকে ধ্বংস করলেই যথেষ্ট। জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ছেলেরা জিপিএ ফাইভের অর্থ বলতে পারে না। শিক্ষাব্যবস্থা সংস্কার করার কথা একাধিকবার বলেছি, সরকার কর্ণপাত করেনি। বলছিলাম সংসদে মাদক সম্রাট রয়েছে, কিন্তু সরকার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। ঘরে আজ ইয়াবা। যুবসমাজ আজ ধ্বংসের পথে।

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, সৌদিতে নারী শ্রমিক পাঠানো হচ্ছে। তারা সেখানে গিয়ে ভয়ানক নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। সেখানে পাঠানো দরকার প্রশিক্ষিত কর্মী।

তিনি আরও বলেন, ফিলিস্তিনে পাখির মতো মানুষ গুলি করে হত্যা করা হচ্ছে। কারণ আমরা মুসলমান, মানুষ নই। ইসলামি দেশগুলো এ ব্যাপারে একমত হতে পারছে না। দেশেও অনেক ইসলামি দল রয়েছে। তারাও একত্র হতে পারছে না। সবাইকে এক হতে হবে, এছাড়া মুক্তির পথ নেই।

আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান আলহাজ আল্লামা এমএ মান্নান, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মহাসচিব এম এ মতিন, প্রেসিডিয়াম সদস্য আল্লামা আবু সুফিয়ান, আল্লামা হারুন অর রশিদ, যুগ্ম মহাসচিব স.উ.এ আব্দুস সামাদ চৌধুরী।

প্রেসিডিয়াম সদস্য গোলাম কিবরিয়া টিপু, সুনীল শুভরায়, এসএম ফয়সল চিশতী, মীর আবদুস সবুর আসুদ, হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, মো. শফিকুল ইসলাম সেন্টু। চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইকবাল হোসেন রাজু, জহিরুল ইসলাম জহির, আরিফুর রহমান খান, সরদার শাহজাহান। যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, শফিকুল ইসলাম শফিক, জহিরুল আলম রুবেল, কেন্দ্রীয় নেতা মো. ইসহাক ভূঁইয়া, ফখরুল আহসান শাহাজাদা, এমএ রাজ্জাক খান, মো. গোলাম মোস্তফা, সুজন দে, অ্যাড. মো. বায়েজিদ, শাহ-ই-আজম মুকুল, মাহবুবুর রহমান খসরু, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় নেতা- অধ্যাপক এমএ মোমেন, সৈয়দ ফকির মো. মোসলেম আহমেদ, সৈয়দ মোজাফফর আহমেদ, অ্যাড. মো. ইসলাম উদ্দিন দুলাল, এমএ মতিন, আল্লামা আব্দুল হাকিম, অধ্যক্ষ আল্লামা হেলাল উদ্দিন প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *