ঈদের সাজে পছন্দের শাড়ি

পোশাকে ফ্যাশনের ধারা বদলে যায় প্রতিনিয়ত। কিন্তু, হাজারো পোশাকের ভিড়ে বাঙালি নারীর কাছে শাড়ির আবেদন কমে না কোনোভাবে। নারীর মন জয় করতে রঙে ঢঙে বৈচিত্রময়তা নিয়ে হাজির হয় শাড়ি। উৎসব মানেই রঙিন জমকালো পোশাকে নিজেকে রাঙিয়ে নেয়া। এবারের ঈদ-উল-ফিতর গরম আর বর্ষার মাঝে হওয়ায় উজ্জ্বল লাল, নীল, কালো, মেরুন, গোলাপী, সবুজ রংকে প্রাধান্য দেয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। আবার রাতে ফিরোজা, হলুদ, লাল ছাড়াও যার যেমন পছন্দ উজ্জ্বল রং নিতে পারেন।

সুতির ওপর ব্লক, এমব্রয়ডারি, কটন, অ্যান্ডি কটন, সিল্ক, হাফ সিল্ক, কটন সিল্ক ও মসলিনে পাবেন হরেক রকম ডিজাইনের ছড়াছড়ি। এসব শাড়িতে রয়েছে টাইডাই প্রিন্ট, এপ্লিক, হ্যান্ড এমব্রয়ডারি ও ব্ল্যাক টাইডাইয়ের ডিজাইন। তবে বেশি স্টাইলিশ ও এক্সক্লুসিভ সংগ্রহে আছে হাতের কাজ ও এক্সক্লুসিভ ডিপ ওয়ার্কে। এসব শাড়িতে রংয়ের ক্ষেত্রে প্রাধান্য পেয়েছে পেস্ট, ইয়োলো, পিংক ছাড়াও হাল্কা সব রং।

এবারের ঈদ সংগ্রহে দেশীয় জামদানি নিয়ে ডিজাইনাররা রীতিমতো নিরীক্ষা চালিয়েছেন। তাই ঈদে গাঢ় জামদানি কাজ আর বর্ণিল সমাহার দেখা গেছে শাড়ির ভাণ্ডারে। এছাড়া ব্লকপ্রিন্ট, এপ্লিক ওয়ার্ক এবং হাতের কাজের অপূর্ব সব কালেকশন থাকছে ফ্যাশন হাউজগুলোতে। রঙের ক্ষেত্রে প্রাধান্য পাচ্ছে হলুদ, গোলাপি, কমলা, সবুজ, নেভি ব্ল–, লাল, বেগুনি। এক্সক্লুসিভ ডিজাইনকৃত শাড়ি হল সিল্কের ওপর এপ্লিকের কাজ করা।

ঈদের জন্য হালকা সব সুদিং রংও দেখা যাচ্ছে শাড়িতে। রাতের জামকালো ঈদ পার্টিতে রঙিন ও বর্ণিল করতে কফি রং, হলুদ, কমলা, লাল ছাড়াও বেশ কটি রং মিলবে শোরুমগুলোতে। আরামদায়ক সুতি, মসলিন, এন্ডিসিল্ক ও রাজশাহী সিল্কের এ শাড়িগুলোতে গ্লাস পিট, বাটিক, হ্যান্ডলুম, নকশি কাজ, কারচুপি ও নেট পেস ওয়ার্কের ডিজাইন করা হয়েছে। তবে কটন বেজড শাড়িগুলো ব্লক প্রিন্ট, স্কিন প্রিন্ট, মোম বাটিকের ওপর ডিজাইন করা হয়েছে।

কটন ও অ্যান্ডি কটনের শাড়িগুলো ডিজাইনভেদে দাম পড়বে ৬০০ টাকা থেকে ৩ হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত। কটন সিল্কের কারুকাজময় শাড়ির দাম পড়বে ৩ হাজার টাকা থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। এছাড়া মসলিন ও সিল্কের কারুকাজময় কারচুপির শাড়ি কিনতে আপনাকে গুনতে হবে ৮ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত। কোটা শাড়ি ৬০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা, এলবো কোটা ১ হাজার ৫০০ থেকে ৬ হাজার টাকা, কাতান ৪ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত, সিল্কের ওপর কাজ করা শাড়ি ২ হাজার থেকে পাঁচ হাজার অপেরা শাড়ি ৫ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা, জামদানি হাফসিল্ক ৩ হাজার ৫০০ থেকে ২৫ হাজার টাকায় এসব শাড়ি মিলবে। রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিং মল, স্টার্ণ প্লাজা, স্টার্ণ মল্লিক, কর্ণফুল গার্ডেন সিটি, নিউমার্কেট, গাওসিয়া, চাঁদনী চক, ফার্মগেটসহ ছোট বড় সব ধরনের শপিং সেন্টার থেকেই বেছে নিতে পারেন মনের মতো শাড়িটি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *