এবার জার্মানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের

রাশিয়া পরিচালিত নর্ড স্ট্রিম ২ গ্যাস পাইপলাইন নির্মাণ প্রকল্পে সম্পৃক্ত কোম্পানিগুলো নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়বে বলে হুমকি দিয়েছেন জার্মানিতে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের দূত। এই পাইপলাইনের সাহায্যে বাল্টিক সাগরের নিচ দিয়ে সরাসরি জার্মানিতে গ্যাস সরবরাহ করা হবে। এ প্রকল্পে জার্মানির কিছু কোম্পানিও কাজ করছে।

রোববার যুক্তরাষ্ট্রের একজন সিনিয়র কর্মকর্তার বরাত একথা বলেছেন বলে জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের বার্তা সংস্থা রয়টার্স। এর আগে রাশিয়ার সঙ্গে সামরিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক রাখায় চীন, ইরান ও ভারতসহ বেশকিছু দেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা বা নিষেধাজ্ঞার হুমকি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

রুশ জ্বালানির ওপর নির্ভরশীল জার্মানিকে মস্কোর হাতে বন্দি বলে অভিযোগ করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশটিকে ১১ বিলিয়ন ডলারের গ্যাস পাইপলাইনের কাজ বন্ধ করে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

এই পাইপলাইনের সাহায্যে বাল্টিক সাগরের নিচ দিয়ে সরাসরি জার্মানিতে গ্যাস সরবরাহ করা হবে। পরে জার্মানি থেকে দেশটির মিত্ররা এতে সংযুক্ত হতে পারবে। এর ফলে ইউক্রেন একটি বড় অঙ্কের গ্যাস ট্রানজিট ফি থেকে বঞ্চিত হবে, যা দেশটি এখন পাচ্ছে।

জার্মানিতে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস জানিয়েছে, আমেরিকান রাষ্ট্রদূত রিচার্ড গ্রেনেল বেশকিছু কোম্পানিকে চিঠি দিয়ে বিষয়টি জানিয়েছেন।

এই মুখপাত্র জানান, রুশ জ্বালানি সরবরাহকারী পাইপলাইনে কাজ করা যেকোনো কোম্পানি কাউন্টারিং আমেরিকা’স অ্যাডভার্সারিজ থ্রো স্যাংশনস অ্যাক্টের(সিএএটিএসএ) আওতায় যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়বে বলে চিঠি দিয়ে মনে করিয়ে দেয়া হয়েছে।

অন্য ইউরোপীয় দেশগুলো এই পাইপলাইন প্রকল্পের বিরোধিতা করেছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ওয়াশিংটন সিএএটিএসএ ব্যবহারের মাধ্যমে অন্য দেশগুলোর পররাষ্ট্র ও জ্বালানি নীতিতে হস্তক্ষেপ করে বলে অভিযোগ জার্মানি এবং তাদের ইউরোপীয় মিত্ররাষ্ট্রগুলোর। তবে এই বিষয়ে জার্মান সরকার এবং নর্ড স্ট্রিম ২ প্রকল্পে সংযুক্ত কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।