এবার শিরোপা ধরা দেবে কি?

দুইয়ের অধিক দেশ নিয়ে আয়োজিত বিভিন্ন টুর্নামেন্টে বেশ কয়েকবার ফাইনালে উঠলেও শিরোপা জিততে পারেনি বাংলাদেশ। শিরোপা জয়ের কাছে গিয়েও বারবার হতাশ হয়ে ফিরতে হয়েছে টাইগারদের। টাইগারদের সামনে এবারও সুযোগ এসেছে একটি ট্রফি জেতার। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল ম্যাচে আগামীকাল (শুক্রবার) ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ডাবলিনের ম্যালাহাইডের দ্য ভিলেজে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল তিনটা ৪৫ মিনিটে।

২০০৯ সালে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে উঠেছিল বাংলাদেশ। ওই সিরিজের ফাইনালে শ্রীলঙ্কার কাছে ২ উইকেটে হেরেছিল বাংলাদেশ। ২০১২ সালে বাংলাদেশ অনুষ্ঠিত হয়েছিল এশিয়া কাপের আসর। সেবারও ফাইনালে উঠে পাকিস্তানের বিপক্ষে মাত্র ২ রানে হেরে শিরোপা হাতছাড়া করেছিল টাইগাররা।

২০১৬ সালে আবার এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠেছিল বাংলাদেশ। সেবার ভারতের কাছে হেরে রানার্স আপ হয়েছিল টাইগাররা। ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ঢাকায় বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়েকে নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজ। ওই সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশ হারে শ্রীলঙ্কার কাছে। এরপর মার্চে শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত নিদাহাস ট্রফিতে ফাইনালে ম্যাচে শেষ বলে বাংলাদেশ হারে ভারতের কাছে। গত সেপ্টেম্বরে সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত হয় এশিয়া কাপের আসর। ওই আসরের ফাইনালে ভারতের কাছে হেরে রানার্স আপ হয় বাংলাদেশ। টাইগারদের সামনে এবারও একটি সুযোগ বড় কোনো সিরিজের শিরোপা জেতার। দেখা যাক ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে টাইগাররা শিরোপা জিততে পারে কিনা?

সিরিজে লিগ পর্বে বাংলাদেশ তিনটি ম্যাচ খেলে তিনটিতে জিতেছে। একটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়। লিগ পর্ব শেষে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ। ৯ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে আয়ারল্যান্ড। লিগ পর্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুইটি ম্যাচ খেলে বাংলাদেশ দুইটিতেই জয় তুলে নেয়। তাই ফাইনাল ম্যাচের আগে একটু বেশি আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ। তবে, সিরিজ জেতা যে খুব সহজ হবে না সেটি জানিয়েছেন টাইগার দলপতি মাশরাফি বিন মর্তুজা।

মাশরাফি বলেছেন, ‘তিন জয়ে আমরা বেশ ফুরফুরে মেজাজে আছি। ফাইনাল ম্যাচটি অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এজন্য ফাইনালের দিন আমাদের অনেক বেশি পরিশ্রম করতে হবে।’

শিরোপা জয়ের জন্য মরিয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজও। দলটির অফ-স্পিনার অ্যাশলে নার্স বলেছেন, ‘লিগ পর্ব শেষ। এখন আমাদের সামনে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ ফাইনাল ম্যাচটি। লিগ পর্বে আমরা ভালো খেলেছি। ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছি। তাই এখন আমাদের লক্ষ্য শিরোপা জয়।’

এখন পর্যন্ত ওয়ানডেতে ৩৬ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এর মধ্যে ১৩ ম্যাচে জয় পেয়েছে টাইগাররা। ২১টি জয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের। এই সিরিজের আগে ডাবলিনের ক্যাসেল অ্যাভিনিউতে একবার মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ১৯৯৯ সালের বিশ্বকাপের ১২তম ম্যাচ ছিল সেটি। ওই ম্যাচে ৭ উইকেটে জয় পেয়েছিল ক্যারিবীয়রা।

মূলত বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসাবে ত্রিদেশীয় সিরিজে খেলছে বাংলাদেশ। এই সিরিজে চ্যাম্পিয়ন হয়ে যদি টাইগাররা বিশ্বকাপ মঞ্চে পা রাখতে পারে তাহলে সেটি টাইগারদের মনোবলকে আরো শক্ত করবে। ইংল্যান্ড ও ওয়েলসে আইসিসি বিশ্বকাপ শুরু হবে ৩০ মে।