‘এ আদেশ রাজনীতিবিদদের জন্য একটি মেসেজ’

দুর্নীতির মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত যশোর-২ আসনের বিএনপির মনোনীত প্রার্থী সাবিরা সুলতানা নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না বলে আপিল বিভাগ যে আদেশ দিয়েছেন তা সতর্কবার্তা বলে মন্তব্য করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

রোববার সুপ্রিম কোর্টে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মাহবুবে আলম বলেন, ‘এ আদেশের ফলে নৈতিক স্খলনজনিত কারণে দুই বছরের বেশি সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন তারা নির্বাচন করতে পারবেন না।’

আপিল বিভাগের আদেশকে আপনি কীভাবে দেখছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আজকের আদেশ অবশ্যই মাইল ফলক হয়ে থাকবে। একটি অপরাধ করে তারপর আবার তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে- এটা আমাদের সংবিধান প্রণেতারা চাননি। এ কারণে ১৯৭২ সালে তৈরি আমাদের সংবিধানে এটি সন্নিবেশিত আছে। এটি থাকবে। এটি কামনা করি।’
সরকার বিচার বিভাগের মাধ্যমে বিএনপি নেতাদের নির্বাচন থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করছেন, বিএনপি সমর্থক আইনজীবীদের এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনি বলেন, ফৌজদারি মামলায় যদি কোন ব্যক্তি দোষি সাব্যস্ত হয় তাহলে তিনি নির্বাচন করতে পারবেন না। এটা বিশেষ কোন দলের বিষয় না। সার্বজনীনভাবে সমস্ত লোকের জন্য প্রযোজ্য যারা সংসদ সদস্য হতে চান।

তবে এটা খুব শক্তভাবে ধরার ফলে এখন থেকে যারা নির্বাচন করবেন, রাজনীতি করবেন তারা নিজেদের কলুষমুক্ত রাখবেন। তাদের কাছে একটা ম্যাসেজ যাবে জনপ্রতিনিধি হতে হলে তাকে সৎ হতে হবে, মামলা মোকদ্দমায় তিনি যাতে দণ্ডপ্রাপ্ত না হন। এমন কাজ তারা করবেন না।’

আপনি যে সংবিধান প্রণেতার কথা বললেন, সেই সংবিধান প্রণেতার একজন ড. কামাল হোসেন বলেছেন, খালেদা জিয়া নির্বাচন করতে পারবেন। এ প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘তিনি সংবিধান প্রণেতাদের মধ্যে একজন। ষোড়শ সংশোধনীতে তিনি যে ডিগবাজী খেয়েছেন ওনার পক্ষে সব রকম কথা বলা সম্ভব।’

রোববার আপিল আদালতের দেওয়া আদেশকে একটি সতর্ক বার্তা উল্লেখ করে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘জনগণের প্রতিনিধি হতে হলে নিজকে নিষ্কলঙ্ক হতে হবে। কোন রকম দূর্নীতির সঙ্গে যুক্ত হওয়া যাবে না। এতে তারা নিজেরাই এখন হুঁশিয়ার হয়ে যাবেন।’

দূর্নীতির দায়ে দণ্ডপ্রাপ্তদের একটি স্থগিতাদেশ দিয়ে নির্বাচনের সুযোগ দেওয়া সংবিধানের অবমাননা বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সংসদ সদস্য পদে থাকা অবস্থায় দুর্নীতিতে সাজাপ্রাপ্ত হলে সঙ্গে সঙ্গে তার সদস্য পদ চলে যাবে। এ বিষয়ে এরশাদের মামলায় চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত আছে।