কীভাবে ঘুমানো উচিত?

একটু খানি শান্তির ঘুমের জন্য আমরা কত কিছুই না করে থাকি। এজন্য পরিষ্কার বালিশের কভার, বিছানার চাদর, শোবার আগে গোসল করে ঘুমানো, ঘুমানো আগে মোবাইল সাইলেন্ট মুডে রাখা যাতে করে কোনোভাবে ফোনের আওয়াজে ঘুম না ভেঙ্গে যায়- এইসব কিছু করার পরেও আপনার যে শান্তিপূর্ণ ঘুম হবে সেটা নিশ্চিত নয়।

জেনে নিন কিভাবে শোবার অবস্থানের উপর ঘুম নির্ভরশীল-

১. ঘুমানোর জন্য সব থেকে সঠিক অবস্থান হল শবাসনে শোয়া। এই অবস্থানে ঘুমালে পিঠের ব্যথা কমে যায় এবং খুবই আরামের ঘুম হয়। কিন্তু এই অবস্থানে ঘুমান মাত্র ৮ শতাংশ মানুষ।

২. আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ‘ন্যাশানাল স্লিপ ফাউন্ডেশন’-এর একটি প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, যে কোনো একটি দিক করে শুলে কাঁধ, নিতম্বের হাড় এবং কোমড়ে ব্যথা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কিন্তু বেশির ভাগ মানুষ এভাবেই ঘুমিয়ে থাকেন।

৩. এ নিয়ে আন্তর্জাতিক মনরোগ বিশেষজ্ঞ সেলবি হ্যারিস জানান, কেউ যদি একদিক ফিরে বাংলা বর্ণ ‘দ’ এর মতো ঘুমান, তাহলে সব সময় একটি নেকপিলো, এবং পায়ের মাঝে একটি বালিশ রাখুন, এতে ব্যথা হওয়ার কোনো সম্ভাবনা থাকবে না।

৪. কখনোই উপুড় হয়ে শোবেন না। এতে পাকস্থলীর উপর চাপ পড়ে। শুধু তাই নয়, এতে করে সারা শরীরে ব্যথা হতে পারে। এই অবস্থানে কখনো ঘুমাবেন না বা ঘুমানো ঠিক নয়।

৫. এছাড়াও মাথা নিচু করে, ভাঙা চোরা বিছানায় শুলে শরীর ব্যথা হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *