কীভাবে সাগরে বেঁচে ছিলেন ৪৯ দিন!

মাছ ধরার নৌকায় চরে সাগরে ৪৯ দিন কাটানোর কথা বলতেই আপনাদের মনে হয়তো ‘লাইফ অব পাই’ সিনেমার কথা উঁকি মারছে।  ভাবছেন এটাও হয়তো নতুন কোনো সিনেমার গল্প। কিন্তু না, এটি একটি বাস্তব ঘটনা।

ইন্দোনেশিয়ার এক কিশোর সাগরের পানি আর মাছ খেয়ে সাগরে বেঁচে ছিলেন ৪৯ দিন।  নৌকার উপরের অংশের কাঠ দিয়ে মাছ রান্না করে এতদিন ধরে যুগিয়েছে তার খাদ্য অভাব। সাগরের বুকে ভেসে বেড়ানো এই বাস্তব হিরোর নাম আলডি নোভেল অ্যাডিলং। মাত্র ১৯ বছরের কিশোর।

আলডি নোভেল অ্যাডিলং জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে প্রচণ্ড বাতাসে ইন্দোনেশিয়ার দ্বীপ সুলাউসির উপকূল থেকে মাছ ধরতে থাকা অবস্থায় ভেসে যায়। তার সঙ্গে থাকা নৌকায় কোনো ধরনের বৈঠা বা ইঞ্জিন না থাকায় সে আর ফিরতে পারেনি।  কয়েক হাজার কিলোমিটার পারি দিয়ে অবশেষে যুক্তরাষ্ট্র অধ্যুষিত গুয়াম দ্বীপের কাছ থেকে উদ্ধার করে একটি জাহাজ।

উদ্ধারের পর অ্যাডিলং বলেন, আমি অনেকবার দেখেছি জাহাজগুলোকে চলে যেতে। কিন্তু একটি জাহাজও আমাকে দেখতে পাইনি। কেউ থামেনি আমার জন্য। আমি মাঝে মাঝে কান্না করেছি। তবে আমি সব সময় আশাবাদী ছিলাম ফিরে আসার।

আটকে পরা ওই নৌকা দেখতে অনেকটা কুড়ে ঘরের মত। দূর থেকে দেখলে অনেকেই এটিকে ‘সী বেড’ ভেবে ভুল করতে পারেন।

আলডির কাজ ছিল মাছ ধরার কাজে সহায়তা করা ইন্দোনেশিয়ান ভাষায় ‘রুমপুং’ নামের ওই বিশেষ নৌকা দিয়ে মাছকে আকর্ষণ করা। ওই কাজের সময় সে প্রতি সপ্তাহে একবারের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য, পানি, এবং তেল পেয়ে থাকতো। কিন্তু একদিন হঠাৎ এক ঝড় হাওয়ায় তাকে ভাসিয়ে নিয়ে যায় কয়েক হাজার মাইল দূরে।

পানামানিয়ান একটি জাহাজ তাকে সাগরের ভাসতে দেখে গুয়াম কোস্ট গার্ডের কাছে সিগন্যাল পাঠালে তাকে উদ্ধার করে ৬ সেপ্টেম্বর জাপান নিয়ে যাওয়া হয়। ৮ সেপ্টেম্বর ‘ইন্দোনেশিয়ান পাই’ তার পরিবারের কাছে ফিরে আসেন।

Leave a Reply