খুশকি থেকে দূরে থাকুন

শীতের রুক্ষতায় সবচেয়ে ক্ষতি হয় চুলের। শরীরের উপরিভাগে থাকে বলে চুলের ওপর ধকল যায় সবচেয়ে বেশি। শীতে খুশকি অনেকের ক্ষেত্রে যন্ত্রণাদায়ক সমস্যা।

খুশকির ফলে চুল কমে যায় ও চুলের মসৃণতা এবং উজ্জ্বলতায় ভাটা পড়ে। তাই খুশকির সমস্যাকে গুরুত্বের সঙ্গে মোকাবিলা করা উচিত।

কারণ- মাথার ত্বক বা স্ক্যাল্পে সব সময় কিছু নতুন কোষ সৃষ্টি হয় এবং পুরনো কোষ ঝরে পড়ে। এটি চক্রাকারে ঘটে। যখন পুরনো মরা কোষ জমে যায় এবং সেখানে ফাঙ্গাস সংক্রমিত হয় তখন খুশকি হয়।

মাথা থেকে সাদা আঁশের মতো গুঁড়া পড়তে থাকে এবং সেই সঙ্গে চুলকানি হয়। অনেক তেলের ব্যবহার খুশকি হওয়ার বড় কারণ। আবার তেল ব্যবহার করলে খুশকি হয়েছে বোঝা যায় না।

যথাযথ শ্যাম্পু ব্যবহার না করলেও খুশকি হতে পারে। কিশোর বা তরুণ বয়সে ব্রণের সঙ্গে খুশকি সাধারণ সমস্যা।

ত্বকের সমস্যা যেমন সোবারিক ডার্মাটাইটিস, সোরিয়াসিস, একজিমা, ফাঙ্গাল ও ব্যাকটেরিয়াল সংক্রমণ খুশকির মতো মনে হয়। খুব বেশি গরম পানি ব্যবহার করে গোসল করলেও ত্বক শুষ্ক হয়ে খুশকি হতে পারে। চিকিৎসকের পরামর্শে খুশকিনাশক শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares