গুড় না চিনি, গুণে এগিয়ে কে?

সব কিছুতেই চিনি মাস্ট? রান্নায় চিনি, রুটিতেও চিনি? উল্টে দিন। চিনির বদলে পাতে রাখুন গুড়। রান্নাতেও গুড়, রুটি দিয়েও গুড়। গুড়ের অঢেল গুণ।

মার গুড় দিয়ে রুটি চিনি দিয়ে চা….। সিনেমার পর্দায় ফাটাফাটি ডায়ালগ। জিতের মুখে শুধু নয়, রক বা চায়ের দোকানে এ ডায়ালগ শুনে চায়ের ভাঁড়ে বা গ্লাসে কখনও চা চলকে ওঠেনি, এমনটা হওয়ার কথা নয়। চিনি না গুড়, বিতর্ক চিরকালের। শীতের ব্রেকফাস্টে চিনি দিয়ে রুটি খাবেন নাকি নলেন গুড়ে ডুবিয়ে, তা ঠিক করবেন খাদ্যরসিকই। তবে, সতর্ক থাকতে হবেই। এমনটাই বলছেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু চিনি ছাড়া কি চা চলে?

 

চিনির চেহারা ভদ্রলোকের মতো শুভ্র ও পবিত্র। আর গুড়ের চেহারায় কোনও কৌলীন্য নেই। তাই গুড়ের চেয়ে চিনিই বেশি সমাদৃত। চিনি তৈরি হয় আখের রস থেকে। আর গুড় হয় সাধারণ আখের রস বা খেজুর রস জ্বাল দিয়ে।

চিনিতে রয়েছে সুক্রোজ নামে শর্করা। আর গুড়ে সুক্রোজের সঙ্গে থাকে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, লোহা। সেই সঙ্গে সামান্য প্রোটিনও থাকে গুড়ে। বিশেষজ্ঞদের দাবি, উপকারের প্রশ্ন উঠলে এগিয়ে থাকবে গুড়।

চিনির চেয়ে কেন এগিয়ে গুড়?

কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ। শরীরে হজমের এনজাইমের কার্যকারিতা বেড়ে যায় গুড় খেলে। যাঁদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে, তাঁরা লাঞ্চ বা ডিনারের ২০ মিনিট পর অল্প গুড় খেয়ে নিতে পারেন।

অ্যানিমিয়া প্রতিরোধ করে। গুড়ে রয়েছে প্রচুর আয়রন। ফলে, হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়ায়। লিভার পরিষ্কার রাখে। ১৫দিন অন্তর অল্প পরিমাণ গুড়। শরীরের থেকে ক্ষতিকারক টক্সিন বের করে দেয়।

ফ্লু সারায় গুড়। কাশি, ঠান্ডা লেগে নাক দিয়ে জল পড়া, মাইগ্রেন, পেট ফাঁপার মতো রোগে উপকারি গুড়। হালকা গরম জলে অল্প গুড় মিশিয়ে সেই জল খেলে উপকার। বা চায়ে চিনির বদলে গুড় দিয়ে খেলে উপকার।

প্রি-মেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম কমায়। পিরিয়ডসের আগে অল্প পরিমাণ গুড়। এন্ড্রোফাইন বা হ্যাপি হরমোন বেরিয়ে শরীরকে রিল্যাক্স করতে সাহায্য করে।

 

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। গুড়ে থাকে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, জিঙ্ক আর সেলেনিয়ামের মতো মিনারেল। ফলে, শরীরে ফ্রি রেডিক্যাল ড্যামেজ রোধ করে। এ ছাড়া বিভিন্ন ইনফেকশন থেকে লড়াই করার ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।

তবে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, গুড়ে থাকে প্রচুর ক্যালরি। তাই যাঁদের ডায়াবেটিস আছে বা যাঁরা ওজন কমাচ্ছেন, তাঁদের গুড় না খাওয়াই ভাল। বা খেলেও পরামর্শ নিতেই হবে চিকিত্সকদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares