জিপি-রবির ব্যান্ডউইথ কমানোর নির্দেশ বিটিআরসি’র

তাগাদা দেয়ার পরও নিরীক্ষা আপত্তির ‘পাওনা’ টাকা পরিশোধ না করায় মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন ও রবির ব্যান্ডউইথ সীমিত করতে ইন্টারনেট গেইটেওয়ে (আইআইজি) প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

এজন্য বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) আইআইজিগুলোকে আলাদা দুটি নোটিশ পাঠিয়েছে সংস্থাটির ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড অপারেশনস বিভাগ। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ব্যান্ডউইথ বাড়ানো যাবে না বলেও নির্দেশনা দেয়া হয় ওই চিঠিতে।

বিটিআরসি’র এক কর্মকর্তা জানান, এই নির্দেশনা দেয়ার ফলে গ্রামীণফোনের জন্য বরাদ্দ ব্যান্ডউইথ ক্যাপাসিটি ৩০ শতাংশ এবং রবির ক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ সীমিত হবে।

সংস্থাটির দাবি, গ্রামীণফোনের কাছে পাওনা প্রায় ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা। আর রবির কাছে পাওনা প্রায় ৮৬৭ কোটি টাকা। নীরিক্ষা আপত্তি হিসেবে এ টাকা দাবি করে বিটিআরসি। অবশ্য এই পাওনা নিয়ে দ্বিমত পোষণ করেছে দুই অপারেটরই।

এর আগে একাধিকবার পাওনা আদায়ে দুই অপারেটরকে চিঠি দিয়েছে বিটিআরসি। গত এপ্রিল মাসে জাতীয় সংসদে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এই পাওনার হিসাব তুলে ধরেন। ওই সময় তিনি চিঠি দেওয়ার কথাও জানান।

ব্যন্ডইউডথ ক্যাপাসিটি সীমিত করায় গ্রামীণফোন ও রবি ব্যবহারকারীদের কলড্রপ বাড়তে পারে এবং গ্রাহকের ইন্টারনেটের গতি কমতে পারে বলে জানিয়েছেন বিটিআরসির ওই কর্মকর্তা।