ড্র করলো রিয়াল, জিতলো পিএসজি

গেলো বছর আগস্টে ২২২ মিলিয়ন ইউরো ট্রান্সফার ফির রেকর্ড গড়ে স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা ছেড়ে প্যারিস সেন্ট জার্মেইতে (পিএসজি) পাড়ি জমান নেইমার। ব্রাজিলের মহাতারকা যোগ দেবার পর যেনো অন্যরকম উৎসব ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের দলটিতে। যখনই মাঠে নামেন দর্শক মাতাতে কোনো ভাবেই কৃপণতা দেখায়না তারকাবহুল দলটি।

বুধবার রাতেও আগের মতই ছিল বিষয়টি। অ্যামেনেন্সের বিপক্ষে ২-০ গোলে জয় নিয়ে ফ্রেঞ্চ লিগ কাপের সেমি ফাইনাল নিশ্চিত করেছে লিগ ওয়ান জায়ান্টরা। এতে একটি করে গোল করেছেন নেইমার ও অ্যাড্রিয়েন র‌্যাবিয়ট।

৩৪ তম মিনিটি পিএসজির হয়ে খেলা ফ্রেঞ্চ কিলিয়ান এমবাপেকে ফাউল করায় লাল কার্ড পেয়ে মাঠ ছাড়তে হয় অ্যামেনেন্সের রেগিস গাটনারকে। গোল শূন্যই ছিলো প্রথমার্ধ।

ম্যাচের ৫৩ মিনিটে নেইমারকে ডি-বক্সে ফেলে দেন প্রতিপক্ষের খেলোয়াড় থমাস মোকোন ডুইট। এতে পেনালটি কিকে গোল দেন সাম্বা ফরোয়ার্ড। মাঠে অভিনব কায়দার গোল উদযাপন করেন ২৭ বছর বয়সী এ তারকা। মাথায় বুট নিয়ে ভক্তদের নজর কাড়েন তিনি।

পিএসজিতে যোগ দেবার পর দলটির হয়ে সব ধরনের প্রতিযোগিতা- লিগ ওয়ান, ফ্রেঞ্চ কাপ, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ও ফ্রেঞ্চ লিগ কাপে গোল করে ফেললেন এ ব্রাজিলিয়ান।

৭৩ মিনিটে গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন পিএসজির হয়ে খেলা ফ্রেঞ্চ মিডফিল্ডার অ্যাড্রিয়েন র‌্যাবিয়ট। শেষ পর্যন্ত আর গোল না হওয়ায় ২-০ গোলে নিয়ে মাঠ ছাড়েন উনাই এমেরির দল।

ফ্রেঞ্চ লিগ কাপের সেমিতে প্যারিসের দলটির প্রতিপক্ষ রেনেস। অন্যদিকে অপর সেমিতে মোনাকোর প্রতিপক্ষ মন্টপিলেয়ার।

##

কোপা ডেল রেতে স্প্যানিশ লা লিগার তৃতীয় সারির দল নুমানসিয়ান মুখোমুখি হয়েছিল জায়ান্ট দল রিয়াল মাদ্রিদ। ফিরতি লেগের ম্যাচটি ২-২ গোলে ড্র হয়েছে। যদিও প্রথম লেগে বড় জয়ের কারণে শেষ আট নিশ্চিত করেছে জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা।

সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে বুধবার রাতে দুই-দুইবার এগিয়ে গিয়েও জিততে পারেনি রিয়াল।

প্রথম লেগে ৩-০ গোলে বড় জয় পায় লস ব্লাঙ্কোসরা। দুই লেগ মিলিয়ে ৫-২ গোলে এগিয়ে থেকে শেষ আটে উঠেছে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোরা।

ম্যাচের ১০ মিনিটেই দলকে এগিয়ে দেয় লুকাস ভাসকেজ। চমৎকার হেডে প্রতিপক্ষের বারে গোল জড়ান স্প্যানিশ এ উইংগার। তবে বিরতিতে যাবার কিছুক্ষণ আগেই প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে গোল শোধ করে নুমানসিয়া। কাউন্টার অ্যাটাকে গোলের নায়ক গুইলেরমো ফারনানদেজ হিরেয়েরো।

দ্বিতীয়ার্ধের খেলা শুরু হবার পর একের পর এক আক্রমণ চালাতে থাকে রিয়াল। ৫৯ মিনিটে ভাসকেজ পূরণ করেন নিজের ও দলের দ্বিতীয় গোল।

২-১ গোলে এগিয়ে থাকা স্বাগতিকরা ফের আক্রমণ চালাতে থাকে। তবে ৮২ মিনিটে বার্নাব্যুর দর্শকদের হতাশ করে নুমানসিয়া। ফের গোল করলেন গুইলেরমো। তবে এবারেরটি হেডে।

ম্যাচের শেষ দিকে সফরকারী দলের খেলোয়াড় দানি কালভোক রিয়াল তারকা ইসকোকে পেছন থেকে ধরে ফেলে দেন। এতে লাল কার্ড দেখিয়েছেন রেফারি। শেষ পর্যন্ত ২-২ গোলে মাঠ ছাড়তে হয় দুই দলকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *