দুনিয়ার সবচেয়ে সুন্দরী লিজা সোবেরানো!

হোপ এলিজাবেথ সোবেরানো। তবে লিজা সোবেরানো নামে ব্যাপক পরিচিত। ফিলিপিনো-আমেরিকান এই মেয়েটি তার সৌন্দর্য বৈভবের জন্য হামেশাই চর্চায় থাকেন। নিজের সৌন্দর্য নিয়ে প্রশংসা স্তুতি তার বলা যায় গা সওয়া।

কিন্তু এবার যে তকমা তিনি পেলেন তা অনেক নারীরই আজন্ম স্বপ্ন। তাকে বাছাই করা হয়েছে ২০১৭ সালের সবচেয়ে সুন্দরী নারী হিসেবে (মোস্ট বিউটিফুল ফেস অব ২০১৭)। তবে একই তালিকায় গত বছর দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন এই মডেল অভিনেত্রী। তার আগের বছর অর্থাৎ ২০১৫ সালে তিনি হয়েছিলেন ৬ষ্ঠ।

শীর্ষ সুন্দরী লিজা

লিজা এই খেতাব জয়ের মাধ্যমে হলিউডের আলোচিত শীর্ষ সুন্দরী এমা ওয়াটসন, নাটালি পোর্টম্যান, এমিলিয়া ক্লার্কদের (গেইম অব থ্রোন্স খ্যাত) কাতারে নিজের নাম লিপিবদ্ধ করলেন। উল্লেখিত সুন্দরীরা সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অভিজাত এই তালিকায় শীর্ষ স্থান দখল করেছিলেন।

ব্রিটিশ ইন্ডিপিন্ডেন্ট মুভি ক্রিটিক্‌সের করা এই লিস্টে এ বছর দ্বিতীয় স্থানে আছেন ফরাসি মডেল অভিনেত্রী থাইলেন ব্লন্ডিউ, তৃতীয় হয়েছেন জাপানি গায়িকা থুয়ু।

 

১৯৯০ সাল থেকে ব্রিটিশ ইন্ডিপিন্ডেন্ট মুভি ক্রিটিক্‌স এই সুন্দরী নির্বাচনের ধারা চালু করে। আর ২০১৩ সালে এসে চালু করে সেরা সুদর্শন পুরুষদের তালিকাও। বলা হয়ে থাকে এই তালিকা সেলিব্রেটি স্ট্যাটাস বা খ্যাতি দেখে নির্ধারণ করা হয় না- এটা করা হয় স্রেফ কাকে কেমন দেখায় (লুকস) তার ওপর নির্ভর করে।

১৯৯৮ সালের ৪ জানুয়ারি ক্যালিফোর্নিয়ায় জন্ম লিজার

টিভি শো আর ফিল্মে কাজ করা সুন্দরীতমা লিজা ফিলিপাইনে খুবই জনপ্রিয়। প্রথমদিকে ওয়ান্সআপনাটাইম, কুং অ্যাকই লিবানমো, শি’জ দ্য ওয়ান প্রভৃতিতে অভিনয় করে খ্যাতি পান। এরপর অভিনয় করেন জাস্ট দ্য ওয়ে ইউ আর, এভরিডে আই লাভ ইউ সহ অন্যান্য ছবিতে।

 

অপরদিকে, ফিলিপিনো সিনেমায় লিজার পর্দাজুটি এনরিক জিল পুরুষদের তালিকায় আছেন ৬১তম স্থানে। এতে প্রথম হয়েছেন কোরিয়ান পপ গ্রুপ বিটিএস’র ভি। গায়ক ভি-এর আসল নাম কিম তাই হাইয়ুং। গেমস অব থ্রোন্স তারকা জ্যাসন মোমোয়া’র অবস্থান কিমের ঠিক পরে। আগের বছর ডাচ অভিনেতা মিশিয়েল হুইসমান পুরুষদের তালিকায় প্রথম হয়েছিলেন। এবারের পুরুষ তালিকায় শীর্ষ দশে আরো আছেন ব্রিটিশ অভিনেতা-প্রযোজক ইদ্রিস অ্যালবা, মার্কিন অভিনেতা আর্মি হামার, বিতর্কিত সুইডিশ ইউটিউবার ফেলিক্স জেলবার্গ প্রমুখ।

ফিলিপাইনে অসম্ভব জনপ্রিয় লিজা

সহ-অভিনেতা জিলের সঙ্গে তার জুটি অসম্ভব জনপ্রিয়। এই জুটি ‘লাভ টিম’ হিসেবে খ্যাত। ফিলিপাইনের প্রাইমটাইম টেলিভিশনে স্টার সিনেমা এবং এবিএস-সিবিএন ‘ব্রেকথ্রো লাভটিম অব ২০১৫’ খেতাব দেয়।

১৯৯৮ সালের ৪ জানুয়ারি ক্যালিফোর্নিয়ায় জন্ম নেওয়া লিজার উচ্চতা ৫ ফিট ৭ ইঞ্চি। বাবা ফিলিপিনো মা আমেরিকান। তবে বাবা-মার বিচ্ছেদের পর অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রে নানা-নানীর কাছেই ছিলেন। এরপর ২০০৮ সালে ১০ বছর বয়সে চলে আসেন এশিয়ায় মানে বাপের দেশ ফিলিপাইনে।

লিজার আছে সহজ মন ভোলানো হাসি

প্রথম বিজ্ঞাপনের (প্রিন্ট পত্রিকার জন্য) অফার পান ১২ বছর বয়সে। এরপর ১৩ বছরর বয়সে শুরু কর্মজীবন। সাইকোলজিতে ডিগ্রি নেওয়ার ইচ্ছা থাকলেও অতি ব্যস্ত শিডিউলের জন্য আর তা হয়ে উঠেনি। তবে অনলাইনে বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কোর্স করেছেনে সাইথভাইল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল থেকে। কিন্তু সাইকোলজি নিয়ে পড়ার ঝোঁকটা এখন মাঝেমধ্যেই তাড়িত করে লিজাকে।

কেউ কেউ অবশ্য মনে করছেন- সাইকোলজি নিয়ে পড়ে আর কী হবে- শ্রেষ্ঠ সুন্দরীর তকমা আর পেশাগত জীবনে একের পর এক সাফল্য দিয়ে হাজারো তরুণ-যুবকের সাইকোলজি যেভাবে গোলমাল করে দিচ্ছেন লিজা- তাই বা কম কিসে!

Leave a Reply