দেশে প্রথম আসল কাঁচা খেজুর, কেজি ৮শ টাকা

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে সুস্বাদু কাঁচা খেজুর পাওয়া যায়। প্রবাসীরা দেশে আসার সময় বিশেষ করে সৌদি আরব বা দুবাই থেকে এই খেজুর কিনে আনতেন।

দেশে সাধারণ খেজুরের তুলনায় এই খেজুরের আকার বড়, স্বাদও অসাধারণ হওয়ায় খাওয়ার আকর্ষণ ছিল বেশি।

কিন্তু দেশের বাজারে কখনো এই কাঁচা খেজুর বিক্রি হতে দেখা যায়নি। গত অক্টোবর মাস থেকে এই প্রথমবার মেলছে সেই কাঁচা খেজুর। কার্টনে ভর্তি এই হলুদ রঙের মিষ্টি কাঁচা খেজুর পাওয়া যাচ্ছে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের ফলের দোকানে। শহরের বড় সুপার শপগুলোতেও কিন্তু দাম নাগালের বাইরে থাকায় ক্রেতা খুব বেশি পাওয়া যাচ্ছে না।

এই ধরনের খেজুরের প্রথম আমদানিকারক আল মদিনা ইন্টারন্যাশনাল ট্রেডার্সের কর্ণধার মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘ছোটবেলা থেকে আমরা বিদেশ থেকে আসা এই কাঁচা খেজুর খেয়ে আসছি। দীর্ঘদিন ফল ব্যবসার সুবাদে পরীক্ষামূলকভাবে অনেকটা ঝুঁকি নিয়ে এই খেজুর আমদানি করি। প্রথমদিকে বেশ ভালো সাড়া ছিলো। ’

জানা গেছে, গত অক্টোবর মাসে মিসর থেকে এই কাঁচা খেজুর আমদানি করা হয়।
চট্টগ্রামের একজন এবং ঢাকার একজন আমদানিকারক গত দেড়মাসে প্রায় ৪০ টন খেজুর আমদানি করেছেন। বাজার মূল্য ২ কোটি টাকা। মিসর থেকে দুবাই হয়ে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটে এসব খেজুর ঢাকায় পৌঁছছে। পরে সেগুলো আবার ট্রাকে করে চট্টগ্রাম আনা হচ্ছে।

ব্যবসায়ীরা জানান, ৫ কেজির কার্টনে এই খেজুর কিনে চট্টগ্রামের আড়তে পৌঁছতে সবমিলিয়ে খরচ হয়েছে ২৬শ টাকা। প্রথমদিকে আমরা প্রতি ৫ কেজির কার্টন ৩১শ টাকায়ও বিক্রি করেছিলাম। পরে সেটি দাম কমে প্রতি কার্টন ২৭শ থেকে ২৯শ টাকার মধ্যে আড়ত থেকে বিক্রি হচ্ছে। আড়তে প্রতি কেজির পাইকারি মূল্য সাতশ থেকে ৬শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে আটশত টাকা।

কাজীর দেউড়ি ফলবিক্রেতা মাসুদ স্টোরের মোহাম্মদ রাজু বলেন, ‘প্রথমদিকে আমরা কেজি ৯শ টাকা বিক্রি করেছি এখন কেজি ৮শ টাকা। দাম শুনে এক কেজির প্যাকেট অনেকেই কিনতে চায় না তাই ক্রেতাদের সুবিধার জন্য কার্টন খুলে আমরা ছোট ২৫০ গ্রাম, ৫০০ গ্রামের প্যাকেট করে বিক্রি করি। এতে বেশ ভালো সাড়া মেলে। ’

কাস্টমস কর্মকর্তারা বলছেন, প্রতি কেজি খেজুরে কাস্টমস ডিউটি ১১টাকা আর সাথে অন্যান্য খরচ যোগ করলে কেজি প্রতি খরচ দাঁড়ায় ৩৭ টাকা। কিন্তু আম আমদানিতে কাস্টমস ডিউটি দিতে হয় ১৩১টাকা এর সাথে অন্য খরচ মিলিয়ে মোট ১৭৭টাকা দিতে হয় প্রতি কেজিতে। এরপরও দাম বেশি হওয়ার কারণ জানতে চাইলে আমদানিকারক মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘ডিউটি কম হলেও এগুলো কার্গো বিমানে দুবাই হয়ে আনতে হয়। তাই দাম বেশি পড়ে। জাহাজে আনলে বড় পরিমাণে আনতে হতো তাই খরচ অনেক কম হতো। ’

আমদানিকারকরা জানান, আগামী সপ্তাহে মিসর থেকে আসছে নতুন জাতের লাল খেজুর। এগুলোর দামও প্রায় একই হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares