ননস্টিকের বাসনে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি

আজকাল সবার রান্নাঘরে শোভা পায় ননস্টিকের বিভিন্ন বাসন। সবাই মনে করেন, এসব পাত্রে রান্না করলে অল্প তেলে রান্না হয়, ফলে স্বাস্থ্যঝুঁকিও কম হয়। কিন্তু ননস্টিক প্যানে রান্না খাওয়ার ফল যে কত মারাত্মক হতে পারে তা আমাদের ধারণাতেই নেই।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ক্যান্সারসহ থাইরয়েড এমনকি বন্ধ্যাত্বের মতো রোগের কারণ এই ননস্টিকের বাসনপত্র। চিকিৎসকদের মতে, তেল কম খাওয়ার অজুহাতে ননস্টিক তাওয়া নয়, বরং স্টিল, কাস্ট আয়রন, লোহা বা সিরামিকের বাসনে অল্প তেল দিয়েই খাবারদাবার ভাজুন। এতেই শরীর থাকবে সুস্থ।

গবেষকদের মতে, ননস্টিকের বাসনপত্র তৈরি হয় ‘পারফ্লুওরোয়ালকাইল কম্পাউন্ড (পিএফসি)’ দ্বারা। এই যৌগকেই ভয়ের কারণ বলে চিহ্নিত করছেন তারা। ইতিমধ্যেই ইউএস এনভায়রনমেন্ট এই যৌগকে ‘কার্সিনোজেনিক’ বলে চিহ্নিত করেছে। অর্থাৎ ক্যান্সারের মতো মারণ রোগের আশঙ্কা বাড়ে এই যৌগের ব্যবহারে।

শুধু ক্যান্সারই নয়, চিকিৎসকদের মতে থাইরয়েড, বন্ধ্যাত্বের মতো রোগেরও কারণ এই পিএফসি। যদিও ননস্টিক কোটিং যারা তৈরি করেন তাদের দাবি, গত দশ বছর ধরে এই যৌগটি ব্যবহার করা হচ্ছে না।

অন্যদিকে, ‘জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল এন্ডোক্রিনোলজি অ্যান্ড মেটাবলিজম’-এ প্রকাশিত এক গবেষণা প্রবন্ধে এক অন্য বিপদের ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন গবেষকরা। তারা ইতালির হাই স্কুলের ৩৮৩ জন ছাত্রের ওপরে একটি সমীক্ষা চালান। এদের মধ্যে ২১২ জনের রক্ত পরীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, সেখানে পিএফসি পুরুষ হরমোনগুলিকে ক্ষতিকরভাবে প্রভাবিত করছে। এর ফলে তাদের যৌনাঙ্গের আকৃতি বদলেছে। প্রভাবিত হয়েছে তাদের প্রজনন ক্ষমতাও।

তারা জানাচ্ছেন, ননস্টিক ফ্রাই প্যান থেকেই আসছে এই বিপদ। তবে শুধু ননস্টিক ফ্রাই প্যান নয়, ফাস্ট ফুড র‌্যাপার থেকেও ঘটতে পারে এই বিপদ।