না বুঝেই যৌন সম্পর্কে জড়াচ্ছে কিশোরীরা, বলছেন শিক্ষক

শিশু-কিশোররা কি যৌন শিক্ষার জন্য পর্নোগ্রাফিতে ঝুঁকে পড়ছে? ছেলেরা কি মেয়েদের এমন কিছু করতে বাধ্য করছে যার জন্য পরে তাদের অনুশোচনা হয়?

যুক্তরাজ্যের ২৪ বছর বয়সী এক স্কুল শিক্ষক বিবিসির ফ্যামিলি এন্ড এডুকেশন প্রোগ্রামের সাক্ষাৎকারেজানিয়েছেন-তার টিন-এজার ছাত্র-ছাত্রীদের কিছু গল্প শুনে তিনি রীতিমতো বিস্মিত হয়ে পড়েছিলেন

“ছেলেরা যে ভাষায় যৌন ও যৌন ক্রিয়া সম্পর্কিত আলোচনা করে তাতে বুঝা যায় এ বিষয়ে তাদের জ্ঞান কতটা কম। সত্যিকার যৌন সম্পর্কের মধ্যে যে দুজনের মধ্যেই সম্মান ও শ্রদ্ধার সম্পর্ক থাকে সে বিষয়ে তাদের কোনো ধারণাই নেই”।

“মেয়েদের যে নিজের প্রতি ভালোবাসা থাকা উচিত, নিজ দেহেরও যে একটা মর্যাদা আছে সেটা তাদের শেখানো হয় না, তারা শেখেও না। এমনকি তাদের যদি ছেলেরা ব্যবহারও করে সেটাও তারা বুঝে না”।

“আমার এক শিক্ষার্থী, যার বয়স ১৪ বছর-আমাকে বলছিল প্রেম হবার পর এক ছেলের সাথে তার যৌন সম্পর্ক হয়েছে। আর কয়েকদিন পর ওই ছেলে তাকে জানায় যে সে তাকে ভালোবাসে না। মেয়েটি দু:খ পাচ্ছিল এই ভেবে যৌন সম্পর্ক করার পরও কেন ছেলেটি তাকে ভালোবাসে না”।

“আমার মনে হয় না ১৪ বা ১৬ বছর বয়সী কোনো কিশোরী ঠিকভাবে যৌন ক্রিয়া করতে পারে এবং এ থেকে মজা নিতে পারে। তারা শুধু এর মধ্যে দিয়ে যায়। কোনো আনন্দ তারা নিতে পারে না। এমনটা করতে তারা বাধ্য হয়”।

“সময়টা এমন যে তারা মনে করে তারা যৌন সম্পর্কে জড়াতে পারছে, এ কাজের জন্য তাদের পছন্দ করা হচ্ছে-এটাইতো সম্মানের। আর যদি ছেলেটা সমাজ বা স্কুলে বা কলেজে জনপ্রিয় হয় তাহলেতো কথাই নেই। তাদের সাথে যৌন সম্পর্কে জড়ানো মানে বিশাল কিছু-কিশোরীরা এমনটাই ভাবছে”।

“এই যে ১৪, ১৫ বা ১৬ বছরে তারা যৌন সম্পর্কে জড়াচ্ছে, সংগম করছে-তারা একসময় পিছনে ফিরে তাকাবে এবং সময় হারিয়ে বুঝবে এটা ভুল ছিল। তারা বুঝবে তাদের শরীর ব্যবহার করা হয়েছে”।

“যৌন সম্পর্কের বিষয়টা তারা খুব সহজভাবে নেয় এবং পরবর্তীতে এটা তাদের পীড়া দেয়”।

“কিশোরীদের আসলে বুঝাতে হবে যে এটা ঠিক নয়। তাদের যে ব্যবহার করা হচ্ছে সেটাও তাদের বুঝাতে হবে”।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares