নিখুঁত ত্বকের জন্যে মধুর দারুণ কিছু ফেসপ্যাক!

বিশুদ্ধ প্রাকৃতিক উপাদান হলো মধু যার গুণাগুণ অগণ্য। মিষ্টি যে কোন খাদ্য তৈরিতে চিনির পরিবর্তে মধু ব্যবহার স্বাস্থ্যের জন্যেও উপকারী এবং খাদ্যের স্বাদে আনে ভিন্ন মাত্রা। প্রতিদিন এক চা চামচ পরিমাণ মধু খাওয়ার ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবার পাশাপাশি ঠাণ্ডার সমস্যাও ভালো হয়ে যায় দ্রুত। তবে প্রাকৃতিক এই উপাদানটি শুধুমাত্র স্বাস্থ্যের জন্যেই নয়, ত্বকের ক্ষেত্রেও দারুণ উপকারী ভূমিকা রাখে। মধুর প্রদাহ বিরোধী উপাদান ও অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদানের ফলে ত্বকের যে কোন সমস্যায় মধু ও মধু দিয়ে তৈরি ত্বকের প্যাক কার্যকরি ভূমিকা রাখে।  মধুর এই সকল উপকারী দিকের জন্যেই বহু বছর ধরেই ত্বকের পরিচর্যায় মেয়েরা মধু ব্যবহার করে আসছেন। বেশ কিছু দারুণ উপাদানের সাথে মধু মিশিয়ে নিয়ে খুব সহজেই তৈরি করে ফেলা যায় মধুর ফেসপ্যাক। এখানে তেমনই সহজ ও উপকারী কিছু ফেসপ্যাকের বিবরণ তুলে ধরা হলো।

মধু ও গ্রিন টি পাউডার

দুই চা চামচ মধুর সাথে আধা চা চামচ গ্রিন টি পাউডার মিশিয়ে ত্বকে লাগাতে হবে। ৫-১০ মিনিট অপেক্ষা করার পর কুসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে। ত্বকের সাধারণ যেকোন সমস্যার ক্ষেত্রে এই ফেসপ্যাকটি খুব ভালো কাজ করে থাকে। সপ্তাহে একবারের জন্য এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করাই যথেষ্ট।

মধু ও অলিভ অয়েল

এক টেবিল চামচ পরিমাণ অলিভ অয়েল এবং মধু একসাথে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। এরপর ব্লেন্ডকৃত মিশ্রণ পুরো মুখে ভালোভাবে লাগিয়ে ২-৫ মিনিট সময় অপেক্ষা করে সাধারণ তাপমাত্রার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিতে হবে। প্রতি সপ্তাহে একবার এই ফেসপ্যাক ব্যবহারে ত্বক ভেতর থেকে পুষ্টি পাবে।

মধু ও টকদই

দুই চা চামচ মধুর সাথে এক টেবিল চামচ ফ্রেশ টকদই মিশিয়ে নিতে হবে ভালোভাবে। মিশ্রণটি পুর মুখের ভালোভাবে ও মসৃণভাবে লাগিয়ে  ১০-১৫ মিনিট সময়ের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। এরপর সাধারণ তাপমাত্রার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে মুখে ভালো কোন ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। দাগযুক্ত ত্বকের ক্ষেত্রে এই ফেসপ্যাকটি বিশেষ উপকারী। প্রতি সপ্তাহে একবারের জন্য এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করাই যথেষ্ট।

মধু ও গুঁড়ো দুধ

এক টেবিল চামচ মধু এবং এক চা চামচ গুঁড়ো দুধ একসাথে মিশিয়ে নিতে হবে। ঘন এই মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে নিয়ে ১০ মিনিট সময় অপেক্ষা করে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। প্রতি মাসে দুইবার এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করাই পরিষ্কার ও সুস্থ ত্বক পাওয়ার ক্ষেত্রে যথেষ্ট।

মধু ও লেবুর রস

একটি বাটিতে এক টেবিল চামচ পরিমাণ মধু ও দুই চা চামচ পরিমাণ লেবুর রস নিয়ে একসাথে ভালোভাবে মেশাতে হবে। তৈরিকৃত ঘন ফেসপ্যাকটি মুখের লাগিয়ে বড়জোর ৫ মিনিট সময় অপেক্ষা করে কুসুম গরম পানি দিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে ফেলতে হবে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে এবং ত্বকের ময়লা দূর করতে চাইলে প্রতি সপ্তাহে একবার এই ফেসপ্যাকটি ব্যবহার করা প্রয়োজন।

মধু ও ডিমের সাদা অংশ

ডিমের শুধুমাত্র সাদা অংশ এবং এক চা চামচ মধু একসাথে মিশিয়ে নিতে হবে। পুরো মুখে তৈরিকৃত এই ফেসপ্যাকটি লাগিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে যেন মুখে ভালোভাবে সেট হয়ে যায়। এরপর ১৫-২০ মিনিট সময় অপেক্ষা করে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ভালোভাবে ধুয়ে নিতে হবে। মুখের ত্বকের জন্য এই প্যাকটি বিশেষভাবে উপকারী। কারণ এতে রয়েছে ডিমের সাদা অংশ। যা ত্বকের রমকূপকে ছোট করতে সাহায্য করে থাকে এবং ত্বককে অনেক নমনীয় করে তোলে।

মধু ও অ্যালোভেরা জেল

মধু ও অ্যালোভেরা জেল প্রতিটি এক টেবিল চামচ পরিমাণ নিয়ে খুব ভালোভাবে মেশাতে হবে। মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে ১০ মিনিট সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে যেন ভালোভাবে সেট হয়ে যায়। এরপর আরও ১০ মিনিট সময় পর্যন্ত রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। ব্রণের সমস্যা কমাতে ও দূর করতে এই ফেসপ্যাকটি বিশেষ উপকারী ভূমিকা পালন করে থাকে।

উল্লেখিত প্রতিটি ফেসপ্যাক একদম প্রাকৃতিক উপাদান দিয়েই তৈরি করা। তবে একেকজনের ত্বকের ধরণের উপর নির্ভর করে একেক ধরণের ফেসপ্যাক মানানসই হবে। সেক্ষেত্রে পরিপুর্ণভাবে যেকোন ফেসপ্যাক ব্যবহার করার পুর্বে দেখে নিতে হবে সেটা ত্বকের সাথে মানানসই কিনা।

Leave a Reply