নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সাথে সংলাপের প্রয়োজন নেই : কাদের

সংবিধানের পথ অনুযায়ীই নির্বাচন হবে। এখানে সংলাপ করতে হবে কেন? প্রয়োজনে সংলাপ হতে পারে, তবে আগামী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এই মুহুর্তে সংলাপের প্রয়োজনীয়তা দেখছি না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর ধানমন্ডিতে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যের জবাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সেতুমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণ পরবর্তী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নয়, পরবর্তী প্রজন্মের কথা মাথায় রেখে এই ভাষণ দিয়েছেন। এই ভাষণ ইতিবাচক, গঠনমূলক ও রাষ্ট্রনায়কসূলভ। দলমত নির্বিশেষে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণকে ইতিবাচক রাষ্ট্রনায়কসুলভ আখ্যা দিয়েছেন। এই ভাষণে জনগণ খুশি হয়েছেন, বিএনপি চরমভাবে হতাশ হয়েছে।

সংলাপের পরিবেশ বিএনপিই রাখেনি উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ২০১৩ সালে প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে খালেদা জিয়া গণভবনে এলে গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক চেহারাটা অন্যরকম হতো। পুত্রহারা মাকে দেখার জন্য প্রধানমন্ত্রী যাওয়ার পর ঘরের দরজা বন্ধ করে, সংলাপের দরজা বন্ধ করে দিলেন খালেদা জিয়া। বিএনপি সংলাপের কথা যতই বলুক, এটা তাদের রাজনৈতিক স্ট্যান্টবাজি। সংলাপের মানসিকতা তাদের মধ্যে নেই।

শেখ হাসিনার শাসনামলকে পাকিস্তানের স্বৈরশাসক আইয়ুব খানের শাসনামলের সঙ্গে তুলনা করায় বিএপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসরামের সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, তারা জেনেশুনে পাকিস্তানি ভাবধারায় বিশ্বাসী। তাদের রাজনীতি পাকিস্তানি ভাবধারায় এটা তারা বুঝিয়ে দিয়েছেন।

নির্বাচনকালীন সরকার বলে সংবিধানে কিছু নেই বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের এমন বক্তবের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ব্যারিস্টার মওদুদ বহুরূপী। তিনি আইনের মুখোশ পরে বেআইনি কথা বলেন।

Leave a Reply