পর্নো ভিডিও দেখায় ছেলের হাত কেটে দিলেন বাবা

সারাক্ষণই মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত থাকতেন ১৮ বছর বয়সী খালেদ। তবে গেম কিংবা ফেসবুক নয়, মোবাইলে পর্নো দেখায় তার নেশা। বাবা-মা’র হাজার শাষণ-বারণেও পর্নো দেখা বাদ দেয়নি সে। শেষমেশ আর শাষণ নয়, পর্নের নেশা ছাড়াতে চাপাতি দিয়ে ছেলের হাতই কেটে দিয়েছেন বাবা। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের তেলঙ্গানার সাইবারাবাদে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত বাবাকে আটক করেছে পুলিশ। আর খালেদ গুরুতর আহতাবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

স্থানীয় পুলিশের বরাত দিয়ে গাল্ফ নিউজ এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, পুলিশের হাতে আটক মোহম্মদ কাইয়ুম কুরেশি সাইবারাবাদের পাহাড়ি শরিফ থানা এলাকার বাসিন্দা। তার ছেলে খালেদ পেশায় কেবল অপারেটর। সম্প্রতি নতুন একটি স্মার্টফোন কিনেছিল খালেদ। আর সেটাতেই গভীর রাত পর্যন্ত পর্নো ফিল্ম দেখত সে। বাবা-মা বারবার বারণ করা সত্ত্বেও পর্নো দেখা বাদ দেয়নি সে। এ নিয়ে সংসারে অশান্তি লেগেই থাকত।

এমতাবস্থায় ২ দিন আগে বিষয়টি নিয়ে বাবার সঙ্গে তুমুল ঝগড়া হয় তার। এ সময় রেগে গিয়ে বাবার হাত কামড়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায় খালেদ। এরপর গভীর রাতে বাড়ি ফিরে আসে।

পরে গতকাল সোমবার রাতে নিজের ঘরে ঘুমিয়ে ছিল খালেদ। সে সময় বাড়িতে আর কেউই ছিল না। পুলিশ জানায়, এদিন বাড়িতে ফিরে ঘুমন্ত ছেলের ডান হাতের কব্জির উপরে চাপাতি দিয়ে আঘাত করেন কাইয়ুম। এতে খালেদের হাত প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

পরে খালেদের চিৎকারে প্রতিবেশিরা এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন খালেদের হাত জোড়া লাগার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ।

পাহাড়ি শরিফ থানার পরিদর্শক পি লক্ষ্মীকান্ত রেড্ডি স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেন, ঘটনার পর খালেদ এবং তার মায়ের জবানবন্দি নেওয়া হয়েছে। তার ভিত্তিতেই কাইয়ুমকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে ছেলেকে খুনের চেষ্টার অভিযোগে মামলা করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *