পাকিস্তানকে ভালোই জবাব দিচ্ছে আইরিশরা

আমরা সাধ্যের মধ্যে নিজের বাড়িকে সুন্দর করে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখি। যাতে করে নিজের মনেও শান্তি আসে, বাড়িতে কেউ বেড়াতে এলেও দেখে মুগ্ধ হওয়া যায়। বাড়ির প্রতিটা ঘরেরই আলাদা আলাদা বৈশিষ্ট্য থাকে, একেকটি ঘরকে আমরা আলাদাভাবে সাজাই। বাড়ির শোবার ঘরটা বেশি নির্মল, পরিপাটি আর সাধারণ হলে ভালো হয়। কিন্তু আমরা শোবার ঘরটাকেই সাজানোর ক্ষেত্রে বেশি অবহেলা করি। কিন্তু চাইলে এভাবে শোবার ঘরকে পরিপাটি করে সাজিয়ে রাখতে পারি-

ঘরের আলো

আমরা মনে করি যে শোবার ঘরটি শুধুই শোবার জন্য। আসলে তো তা নয়। আমরা তো কত সময়েই বিছানায় বসে পড়াশোনাও করি। আর তাই বিছানার এক পাশে একটা টেবিল ল্যাম্প রাখা যেতে পারে। ঘরটা সুন্দর করে তুলতে ফলস সিলিংয়ে ব্যবহার করতে পারেন লালচে, নীলচে বা সবুজ আলো। এতে করে চোখে একটা শান্তি আসে, মন ভালো লাগে।

ঘরের দেওয়াল

শোবার ঘরে একটা দেওয়াল ঘড়ি ছাড়া আমরা তেমন কিছু রাখিনা। কিন্তু চাইলে ড্রয়িং কিংবা ডাইনিং রুমের দেওয়ালটি সুন্দর করে তোলা যায়। সেজন্য নানা ধরনের পেইন্টিং কিংবা ওয়াল হ্যাঙ্গিং ব্যবহার করা হয়। এতে করে প্রতিদিন ঘুম থেকে ওঠার সময় এবং ঘুমাতে যাওয়ার সময়ে সেগুলো চোখে পড়বে, ভালো লাগবে। যার যেমন পছন্দ তেমন ছবি, ওয়াল পেইন্টিং, ওয়াল স্টিকার লাগাতে পারেন দেওয়ালে।

দেওয়ালের রং

দেওয়ালে কখনো গাড় রং যেমন- খয়েরি, চকলেট বা খুব উজ্জ্বল রং ব্যবহার করা উচিৎ নয়। ঘরের জন্য হালকা কোমল রংই বেশি উপযোগী। কারণ এতে করে চোখে আরাম লাগে। সেই সঙ্গে দিনের বেলা যাতে ঘরে আলো ভালোভাবে কাজ করতে পারে, এমন রং বেছে নিতে হবে। এতে করে ঘরেই একটি প্রকৃতির ছোঁয়া পাওয়া যাবে।

ঘরের আসবাবপত্র

ঘরে কখনো বেশি পরিমাণে আসবাবপত্র রাখা ঠিকনা, এতে করে ঘরের সৌন্দর্য থাকেনা। কারণ এতে করে ঘরকে অনেক বেশি এলোমেলো মনে হয়। যত কম আসবাব রাখা হবে, ততই মন ভরে নিঃশ্বাস নেওয়া যাবে, ঘর নোংরা হওয়ার ভয়ও কম থাকবে। বিছানার পাশে ছোট একটা টেবিল, সঙ্গে একটা কাউচ বা সুন্দর চেয়ার, একটা আয়না-সহ ড্রেসিং টেবিল, আর দেওয়াল লাগোয়া একটা ওয়ারড্রব- এটুকু হলেই ঘরটা পরিপূর্ণ আর সুন্দর দেখা যাবে।

ঘরের বিছানা

সারাদিন আমাদের যথেষ্ট পরিশ্রম করতে হয়। এজন্য রাতে একটা আরামের ঘুম দরকার হয়। তা না হলে পরেরদিন আর ভালো থাকা যায়ণা। আর ঘুম না হলে শরীর আর মেজাজ দুটোই খারাপ হয়ে থাকে। ভালো ঘুমের জন্য দরকার ভালো একটি ভালো তোষক বা ম্যাট্রেস। উঁচু-নিচু, অতিরিক্ত শক্ত বা নরম তোষকের বিছানায় শুয়ে বসে অসম্ভব অস্বস্তি হয়। এছাড়া বালিশগুলোও শক্ত আর নরমের মাঝামাঝি হতে হবে। বিছানার চাদর রাখবেন দেওয়ালের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *