পুরোনো মদ, আবির্ভূত নতুন বোতলে: ঢাবি উপাচার্য

‘৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন সামনে রেখে কতগুলো দল-উপদল ও গোষ্ঠী তৈরি হয়েছে। এদের মধ্যে যুদ্ধাপরাধী, তাদের সঙ্গে মানবতাবিরোধী অপরাধীদের ছত্রচ্ছায়ায় লালিতপালিত কিছু মানুষ রয়েছে৷ দল-উপদল ও গোষ্ঠীতে বিভক্ত হয়ে তারা বিজয়ের এই মাসকে কলঙ্কিত করছে। নতুন মাত্রা ও নতুন পরিচয়ে তাদের আত্মপ্রকাশ শুরু হয়েছে। এরা পুরোনো মদ, আবির্ভূত হয়েছে নতুন বোতলে।’

শুক্রবার শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) প্রশাসনের উদ্যোগে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) মিলনায়তনে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান।

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ঢাবি উপাচার্য বলেন, ‘পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর থেকে দেশটি সাম্প্রদায়িক চরিত্র ধারণ করতে থাকল৷ বাঙালি জনগোষ্ঠীর ওপর শুরু হলো নিপীড়ন ও বৈষম্যমূলক আচরণ। ঠিক এই মুহূর্তেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনাভিত্তিক রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ গঠন করেন৷ যারা মানুষের মনস্তাত্ত্বিক জগতে পরিবর্তন এনে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিতে উদ্বুদ্ধ করেছেন, পাকিস্তানি গোয়েন্দা কর্মকর্তারা তাদের চিহ্নিত করে হত্যার সিদ্ধান্ত নেয়। একাত্তরের ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এ কাজে আল বদর, আল শামস বাহিনীকে এজেন্ট হিসেবে নিয়োগ করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. এনামউজ্জামানের সঞ্চালনায় আলোচনা অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ, শহীদ অধ্যাপক গিয়াসউদ্দীন আহমদের বোন সাজেদা বানু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক অধ্যাপক তাজিন আজিজ চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য দেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বেশ কয়েকজন শিক্ষক এ আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন৷