প্রধানমন্ত্রী সংসদে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন : ফখরুল

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় সংসদে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন। যা রাজনৈতিক বিবেদ আরো বাড়াবে। তিনি সংসদে দাঁড়িয়ে যে মিথ্যাচার করেছেন তা রাষ্ট্রদ্রোহিতার সামিল। মানহানির মামলা হতে পারে। বললেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার সকালে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া বক্তব্য মিথ্যাচারে ভরপুর। প্রধানমন্ত্রী যা বলেছেন সবই ভিত্তিহীন। তিনি মানুষকে বিভ্রান্ত করতেই বিএনপি চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত মিথ্যাচার করছেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজনীতিতে আসার পর থেকেই বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে ভিত্তিহীন বক্তব্য দিয়ে আসছেন। অনবরত মিথ্যাচার ও বিষোদগার করে যাচ্ছেন।

প্রসঙ্গত জোড়াতালি দিয়ে পদ্মা সেতু তৈরি করা হচ্ছে- খালেদা জিয়ার এমন মন্তব্যের বিষয়ে বুধবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর কাছে জানতে চান সংরক্ষিত আসনের সাংসদ ফজিলাতুন্নেসা। প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সেতু তো বিভিন্ন পার্ট (অংশ) তৈরি করে করে নির্মাণ হয়। এ ক্ষেত্রে তো জোড়া দিয়েই সেতু করা হয়। জোড়া না দিলে তো সেতু হয় না। কিন্তু উনি (খালেদা জিয়া) জোড়াতালি দিয়ে কী বোঝাতে চেয়েছেন, তা আমার বোধগম্য নয়। তবে বাংলাদেশে তো একটা প্রচলিত কথা রয়েছে, পাগলে কিনা কয়, ছাগলে কিনা খায়। আমার মনে হয়, এ ধরনের পাগলের কথায় বেশি মনোযোগ না দেয়াই ভালো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *