প্রস্তুতি ম্যাচে পাকিস্তানকে হারালো আফগানিস্তান

এবারের বিশ্বকাপ সবচেয়ে কঠিন হবে বলে গতকাল ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি। তার কথাটা আজ লেগেই গেল। সেটিও আবার চির প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের ম্যাচে।

আজ থেকে শুরু হয়েছে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচ। এখানে সবগুলো দলই পাবে দুটি করে ম্যাচ। শুক্রবার মুখোমুখি হয়েছে পাকিস্তান-আফগানিস্তান আর দক্ষিণ আফ্রিকা ও শ্রীলঙ্কা।

ব্রিস্টলে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। ইংল্যান্ড সিরিজে যে চারটি ম্যাচ খেলেছিল পাকিস্তান তার সব কটিতেই তিনশ’র উপরে রান করেছিল তারা। তারই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতেই হয়তো সরফরাজের এমন সিদ্ধান্ত।

সরফরাজের এমন সিদ্ধান্তকে রীতিমত বুড়ো আঙুল দেখাল আফগানিস্তানের বোলাররা। পাকিস্তানকে অলআউট করে দিল মাত্র ২৬২ রানেই। তাও আবার ৪৭ ওভার ৫ বলে!

ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তানি দুই ওপেনার নিজেদের জুটি টেনে নেন ৪৭ রান পর্যন্ত। ইমাম উল হককে ৩২ রানে ফেরান দীর্ঘদিন পর দলে ফেরা হামিদ হাসান। এরপর ফখর জামানকে ১৯ রানে ফেরান মোহাম্মদ নবী।

দুই নম্বরে ব্যাট করতে এসে ১১২ রানের ইনিংস খেলেন বাবর আজম। যদিও তাকে যোগ্য সঙ্গ দিতে পারেনি কেউই। শোয়েব মালিক করেন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪৪ রান।

আফগানদের হয়ে ৩ উইকেট নেন মোহাম্মদ নবী, ২টি করে উইকেট নেন দেলাওয়াত জার্দান ও রশিদ খান। ১টি করে উইকেট নেন হামিদ হাসান ও আফতাব আলম।

পাকিস্তানের দেয়া ২৬৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই চড়াও হোন আফগান ব্যাটাররা। যদিও মোহাম্মদ শাহাজাদ রিটায়ার্ড করেন ২৩ রান করে। আরেক ওপেনার হযরতউল্লাহ জাজাই সাজঘরে ফেরেন অর্ধশতক থেকে ১ রান দূরে থাকতে। রহমত শাহ করেন ৩২ রান।

চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে হাশমত উল্লাহ শাহিদী এমনভাবে ঝেঁকে বসেন পাকিস্তানি বোলারদের উপর, তাকে আর ফেরানোই যায়নি সাজঘরে।

মাঝে মোহাম্মদ নবী করেন ৩৪ রান। শেষ পর্যন্ত রশিদ খানকে নিয়ে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান হাশমত উল্লাহ। অপরাজিত থেকে যান ৭৪ রানে। ২ বল ও ৩ উইকেট হাতে রেখে পাকিস্তানকে পরাজয়ের স্বাদ দেয় আফগানরা।

পাকিস্তানের হয়ে ৩ উইকেট নেন ওয়াহাব রিয়াজ, ২ উইকেট নেন ইমাদ ওয়াসিম ও ১টি করে উইকেট নেন শাদাব খান আর মোহাম্মদ হাসনাইন।