ফের এশিয়ান গেমসে থাকছে ক্রিকেট

১৯৯৮ সালে প্রথমবারের মতো কমনওয়েলথের মাধ্যমে কোনো আন্তর্জাতিক বহু-ক্রীড়া ইভেন্টে সম্পৃক্ত হয় ক্রিকেট। সেবার ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কাসহ ১৬টি দলের সঙ্গে অংশ নিয়েছিল বাংলাদেশও। যদিও গ্রুপ সি’তে নর্দান আয়ারল্যান্ড, বার্বাডোজ ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে একটি ম্যাচেও জয় পায়নি আকরাম খান নেতৃত্বাধীন দলটি।

মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে কমনওয়েলথের ওই আসরে শন পোলকের অধিনায়কত্বে স্টিভ ওয়াহ নেতৃত্বাধীন শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ারকে হারিয়ে জয় পেয়েছিল প্রোটিয়ারা। এর পর দীর্ঘ ১৮ বছর পর এশিয়ান গেমসের মধ্য দিয়ে মেগা ইভেন্টে ফেরে ক্রিকেট।

২০১০ সালের চীনের গুয়াংজু এশিয়ান গেমসে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা অংশ নিলেও ভারত এতে যোগ দেয়নি। আইসিসি’র পূর্ণ সদস্য আফগানিস্তানসহ সহযোগী সদস্য হিসেবে যোগ দেয় চীন, হংকং, মালয়েশিয়া, নেপাল ও মালদ্বীপ।

টি-টোয়েন্টি এই আসরের ফাইনালে আফগানিস্তানকে হারিয়ে সোনা জয় করেছিল টাইগাররা। অন্যদিকে আফগানরা রূপা ও তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে পাকিস্তানকে হারিয়ে শ্র্রীলঙ্কা ব্রোঞ্জ জিতে নিয়েছিল।

২০১৪ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার ইনচন এশিয়ান গেমসেও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট খেলা হয়। সেবারও ভারত অংশ নেয়নি এতে। শ্র্রীলঙ্কা চ্যাম্পিয়ন হলে সোনা জিতে নেয়। আফগানিস্তান রূপা ও তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে হংকংকে হারিয়ে বাংলাদেশ ব্রোঞ্জ জিতে নিয়েছিল।

যদিও গেল বছর ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় অনুষ্ঠিত এশিয়ান গেমসের ১৮তম আসরে বাদ দেওয়া হয় ক্রিকেটকে। সেবার কারণ হিসেবে বলা হয়েছিল, আয়োজক শহরে ক্রিকেট খেলার মতো অবকাঠামো না থাকাকে।

তবে ক্রিকেট প্রেমীদের জন্য সুখবর হচ্ছে ২০২২ সালে চীনের হাংঝৌতে হতে চলা এশিয়ান গেমসে আবারও যোগ হচ্ছে ক্রিকেট।

থাইল্যান্ডের ব্যাংককে অলিম্পিক কাউন্সিল অব এশিয়ার (ওসিএ) সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।