ফ্যাশনের নতুন বৈচিত্র্য এনেছে ঢিলেঢালা পালাজ্জো

ষাট এবং সত্তুরের দশকে জনপ্রিয় ছিল ঢিলেঢালা প্যান্ট যা পালাজ্জো ট্রাউজার্স নামে পরিচিত। অন্য সব ফ্যাশন এর মত এটিও আবার ফিরে এসেছে এবং আগের চেয়েও বড় আকারে, বিচিত্র ব্যবহার নিয়ে। কামিজ, টিশার্ট, কুর্তি সব কিছুর সাথেই সমান ফ্যাশানেবল লাগবে এই পালাজ্জো ট্রাউজার্সগুলো।
পালাজ্জোর জনপ্রিয়তার একটি বড় কারন হল এই প্যান্টগুলো অত্যন্ত আরামদায়ক। এই গ্রীষ্মের কাঠফাটা আবহাওয়ার জন্য সত্যিই আদর্শ। ঢিলাঢালা এই প্যান্টগুলো লিনেন বা সুতির কাপড়ে বানিয়ে নিন। ইচ্ছে হলে এক রঙ, প্রিন্টেড বা অন্য যে কোন কাপড়ে বানিয়ে নিতে পারেন। বানাতে পারেন একেবারে স্কার্ট এর মত ঢিলা আবার ইচ্ছা হলে বেলবটম প্যান্টের মত অল্প ছড়ানো। আপনার রুচি এবং পছন্দ মত।
ওয়েস্টার্ন, ইস্টার্ন সব পোষাকেই পালাজ্জো সমান মানানসই। বন্ধুদের আড্ডায় পড়তে পারেন টিশার্টের সাথে। একটু ফরমাল, যেমন অফিসে পরতে পারেন কামিজ বা কুর্তির সাথে।
পাকিস্তানী ও ভারতীয় ফ্যাশন ডিজাইনাররা কামিজ এর সাথে পালাজ্জো প্যান্ট পরার জন্য একটি নতুন ট্রেন্ড প্রবর্তন করেছেন। আর তাই তরুনেরা যেমন এই ট্রাউজার্সগুলো পরতে পছন্দ করে, তেমনি বয়স্করাও পালাজ্জোতে সমান সচ্ছন্দ।
আজকাল বাজারে দারুন সব প্রিন্টেড কাপড় পাওয়া যায়। একটু মাথা খাটিয়ে আপনার পছন্দমত কাপড় আর ডিজাইনে বানিয়ে ফেলুন পালাজ্জো আর সাথে এক রঙা টপ/শার্ট অথবা কুর্তি দিয়ে পরে নিন। একটু রোমান্টিক লুক এর জন্য পালাজ্জো প্যান্ট এর সঙ্গে লেইস শার্ট পরে নিন অথবা সাদা টপ, সাথে নেকলেস। কামিজের সাথে পরলে সহজেই এথনিক সাজ দিতে পারেন। কপালে দিন টিপ, হাতে চুড়ি। কানে পরতে পারেন ট্র্যাডিশনাল বা ফাঙ্কি লুকের দুল। এই ভীষণ গরমে যেমন আরাম পাবেন তেমনি একটি স্টাইল স্টেটমেন্টও তৈরি হবে। কলেজ, ইউনিভারসিটি অথবা কর্মজীবী মেয়েদের জন্য এই স্টাইলটি আদর্শ।
যেকোনো ফ্যাশন ট্রেন্ড অনুসরন করার আগে ভাবুন নিজের বয়স, শারীরিক গঠন ইত্যাদি। এসব মাথায়ে রেখে তবেই সেটি অনুসরন করুন। সবচাইতে জরূরী হল আপনার স্বাচ্ছন্দ্য। স্টাইল যাই হোক না কেন, তাতে যেন আপনার নিজস্বতা বজায় থাকে।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *