বগুড়ায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ জেএমবি নেতা নিহত

বগুড়ায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ জেএমবির (পুরনো) বাংলাদেশ শাখার আমির খোরশেদ (৩৮) নিহত হয়েছেন। সোমবার রাত দেড়টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার পীরব তাতিপুকুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জঙ্গীদের হামলায় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তাদেরকে বগুড়া পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহত খোরশেদ পুরাতন জেএমবিতে মাস্টার ওরফে সামিল নামে পরিচিত। তিনি জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ি উপজেলার ঘোনারপাড়া গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ওয়ান শুটার গান, তিন রাউন্ড গুলি, একটি বার্মিজ চাকু এবং খাবার হিসেবে একটি পাউরুটি ও কলার অংশ উদ্ধার করেছে।

বগুড়ায় পুলিশের মিডিয়া বিভাগের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী বলেন, সোমবার রাত দেড়টার দিকে শিবগঞ্জের পীরব তাতিপুকুর এলাকায় একদল দুস্কৃতিকারী টহল পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এতে আহসান নামে পুলিশের এক সাব ইন্সপেক্টর এবং সাব্বির নামে অপর এক কনস্টেবল আহত হন। তখন পুলিশ পাল্টা গুলি চালায়। এতে হামলাকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এক যুবককে আহত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে তাকে দ্রুত বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) ও হাসপাতালে পাঠায়। তবে হাসপাতালে পৌঁছার আগেই তার মৃত্যু হয়।

শজিমেক হাসপাতালের চিকিৎসকের বরাত দিয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী বলেন, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে জঙ্গী খোরশেদের মৃত্যু হয়েছে।

তিনি বলেন, হাসপাতালে আনার পথে আহত যুবক নিজেকে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ি উপজেলার ঘোনারপাড়ার আব্দুল খালেকের ছেলে খোরশেদ বলে উল্লেখ করে। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে খোঁজ নিয়ে জানা যায় সে পুরাতন জেএমবির বাংলাদেশ শাখার আমির। তার সাংগঠনিক নাম মাস্টার ওরফে সামিল।