বর্ণবিদ্বেষ ক্ষোভে অবসর নিলেন ওজিল

আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসরের ঘোষণা দিলেন মেসুত ওজিল। কারণ হিসেবে দেখিয়েছেন বর্ণবিদ্বেষ।

চলতি বছরের বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্ব থেকে জার্মানি ছিটকে যাওয়ার কারণ হিসাবে দায়ী করা হয়েছিল আর্সেনাল তারকার নিষ্প্রভ পারফরম্যান্সকে। দক্ষিণ কোরিয়ার বিরুদ্ধে শেষ গ্রুপ ম্যাচে হারের পর গ্যালারিতে উপস্থিত সমর্থকদের সঙ্গে ঝামেলাতেও জড়ান জার্মান এই মিডফিল্ডার।

রোববার নিজের অফিসিয়াল টুইটারে ২৯ বছর বয়সী ফুটবল জানান, আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসর নিচ্ছেন তিনি।

বিশাল এক বিবৃতিতে দেশটির বিরুদ্ধে বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ তুলে ওজিল বলেন, অনেক ভাবনাচিন্তার পর আমি আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসর নিতে বাধ্য হলাম। বিশ্বকাপে আমার সঙ্গে যা হয়েছে সেটার পর আর জার্মানির হয়ে খেলব না। জার্মানির বর্ণবিদ্বেষের আবহে আমার মনে হয়েছে এটাই সঠিক সিদ্ধান্ত। এক সময় গর্ব হতো জার্মান জার্সি পরে মাঠে নামলে। এখন ছবিটা পুরো আলাদা। সিদ্ধান্তটা খুবই কঠিন। কিন্তু বিদায়বেলায় এটাই বলতে চাই, আমি সব সময় দেশের জন্য নিজের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করেছি।

জার্মানির হয়ে ৯২ ম্যাচ খেলেছেন। হয়েছেন পাঁচবারের বর্ষসেরা জার্মান ফুটবলার। ২০১০ বিশ্বকাপে অপরিচিত হিসাবে মাঠে নামলেও টুর্নামেন্ট শেষে ওজিল হয়ে উঠেছিলেন বিশ্বের সেরা তারকাদের মধ্যে একজন।

কয়েক দিন আগে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তায়েপ এরদোয়ানের সঙ্গে ছবি পোস্ট করে বিতর্কে পড়েন ওজিল। জার্মান ফুটবল ফেডারেশন (ডিএফবি) থেকে তাকে সতর্কও করা হয়।

ওই ঘটনার কথা উল্লেখ করে ওজিল বলেন, ফেডারেশনের উচ্চপদস্থ কর্তারা যেমনভাবে আমার সঙ্গে আচরণ করেছেন সেটা মানা যায় না। সবাই জানে আমি তুরস্কের বংশোদ্ভূত। তাও আমাকে রাজনৈতিক প্রচারে জড়িয়ে ফেলা হয়। আর ফুটবলে বর্ণবিদ্বেষের জায়গা নেই।

২০১৪ সালে জার্মানির বিশ্বকাপ জয়ের পেছনে ওজিল ছিলেন অন্যতম অস্ত্র। কিন্তু গেলো কয়েক বছরে ওজিলের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে কঠিন, পরিস্থিতিতে মাঝে মাঝে হারিয়ে যান ম্যাচ থেকে।

মাঝমাঠ দাপিয়ে বেড়ানো এই প্লে মেকার রাশিয়ায় ‘কম পরিশ্রম’ করে খেলেছেন বলে অনেকে সমালোচনা করেন।

বিশ্বকাপ শেষে ওজিলের বর্তমান ক্লাব আর্সেনালের সাবেক কোচ আর্সেন ওয়েঙ্গার বলেন, ওজিলকে দেখে মনে হলো জার্মানির হয়ে এবার নিজের সেরাটা দেননি।

Leave a Reply