বিএনপি অফিসে তালা দিয়ে ছাত্রদলের দিনভর বিক্ষোভ

মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি ভেঙে দেওয়ার প্রতিবাদে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের ফটকে তালা ঝুলিয়ে দিনভর বিক্ষোভ দেখিয়েছে ছাত্রদলের বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা।

মঙ্গলবার সকাল থেকে এই বিক্ষোভের মধ্যে তারা ওই কার্যালয়ের বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দেয় কয়েক দফায়।

এক পর্যায়ে তারা ভেতরে ঢুকে অফিস কর্মচারীদের কয়েকজনকে বের করে দিয়। এ সময় ছাত্রদলের ঢাকা মহানগর পূর্ব শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক রবিউল ইসলাম নয়ন বিক্ষুব্ধদের মারধরের শিকার হন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

ছাত্রদলের সাবেক কয়েকজন নেতা সকালে কার্যালয়ে এসে বিক্ষুব্ধদের বাধার মুখে ভেতরে ঢুকতে ব্যর্থ হন। পরে তারা গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে গিয়ে লন্ডনে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

বিক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাদের একটি প্রতিনিধি দলও বিকালে গুলশানের কার্যালয়ে যান। সেখান থেকে তাদের সঙ্গে তারেকের কথা হয়। এরপর রাতে নয়া পল্টনের কার্যালয়ের তালা খুলে দেয় বিক্ষুব্ধরা।

অসুস্থতার কারণে শয্যাশায়ী বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এখনও বিএনপি কার্যালয়ের তৃতীয় তলায় রয়েছেন। দুইজন অফিস কর্মী এবং চিকিৎসক সেখানে তার সঙ্গে রয়েছেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতা মির্জা আব্বাস ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বিকালে নয়া পল্টনে এসে অসুস্থ রিজভীকে দেখে যান।

বেরিয়ে যাওয়ার সময় মির্জা আব্বাস সাংবাদিকদের বলেন,“বিষয়টা সাংবাদিকরা যেভাবে সিরিয়াসলি নিয়েছে বা উপস্থাপন করেছে, আসলে বিষয়টি সেরকম সিরিয়াস না। এটা পোলাপানের কাজ-কর্ম, মান-অভিমানের কাজ।

‘‘কয়েকদিন আগে ঈদ গেছে। মান-অভিমান হয়েছে। এটা ঠিক হয়ে যাবে। কারো কিছু করতে হবে না। কোনো সালিশ, আলোচনা কিছুই করতে হবে না। ওরা রাগ করেছে, সব ঠিক হয়ে যাবে।”