বিচার বিভাগের আলাদা সচিবালয় অবাস্তব ধারণা

পৃথিবীর কোনো গণতান্ত্রিক কিংবা অগণতান্ত্রিক দেশে বিচার বিভাগের আলাদা সচিবালয় নেই। জাতিসংঘভুক্ত ১৯৩টি দেশের বিচার বিভাগেরও কোনো আলাদা সচিবালয় নেই। ফলে বর্তমান প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশে বিচার বিভাগের জন্য আলাদা সচিবালয় গঠন অবাস্তব ধারণা। বলেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

রোববার রাজধানীর বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে তিনি এ কথা বলেন। জেলা ও দায়রা জজ এবং সমপর্যায়ের বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের ২১তম জুডিশিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ট্রেনিং কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

মাসদার হোসেন মামলার চূড়ান্ত শুনানি করে ১৯৯৯ সালের ২ ডিসেম্বর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ সরকারের নির্বাহী বিভাগ থেকে বিচার বিভাগকে আলাদা করতে ঐতিহাসিক এক রায় দেন।

ওই রায়ে বিসিএস (বিচার) ক্যাডারকে সংবিধান পরিপন্থী ও বাতিল ঘোষণার পাশাপাশি জুডিশিয়াল সার্ভিসকে স্বতন্ত্র সার্ভিস ঘোষণা করা হয়।

বিচার বিভাগকে নির্বাহী বিভাগ থেকে আলাদা করার জন্য সরকারকে ১২ দফা নির্দেশনা দেয় সর্বোচ্চ আদালত, সেখানে বিচার বিভাগের জন্য আলাদা সচিবালয় করার কথাও ছিল।

মাসদার হোসেন মামলার রায়ের পর ২০০৭ সালের ১ নভেম্বর নির্বাহী বিভাগ থেকে আলাদা হয়ে বিচার বিভাগের কার্যক্রম শুরু হলেও গত এগারো বছরে বিচার বিভাগীয় সচিবালয় প্রতিষ্ঠা পায়নি।

সাবেক প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের সমযে পুরাতন সড়ক ভবনে বিচার বিভাগীয় সচিবালয়ের উদ্বোধন করা হলেও এরপর কাজ আর এগোয়নি।

ওই ১২ দফা নির্দেশনার মধ্যে নিম্ন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলা ও আচরণবিধি নিয়ে সরকারের সঙ্গে বিচার বিভাগের দীর্ঘ টানাপড়েন চলে। শেষপর্যস্ত গতবছরের শেষ দিকে ওই শৃঙ্খলাবিধির গেজেট প্রকাশ করে সরকার।

বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক বিচারপতি খোন্দকার মুসা খালেদের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে আইন সচিব আবু সালেহ শেখ মো. জহীরুল হক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

rtv

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares