বিদায়ের ম্যাচে অনন্য উচ্চতায় স্টার্ক

ইংল্যান্ডের কাছে বাজেভাবে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিতে হলো অস্ট্রেলিয়াকে। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা পুষিয়ে নিতে বোলিং আক্রমণের নেতৃত্ব থাকা মিচেল স্টার্ক এদিন কিছুই করতে পারেননি। ৯ ওভার বল বল করে দিয়েছেন ৭০ রান। ওভার প্রতি ৭.৭৮। এত কম পুঁজি নিয়েও দেদারসে রান খরচ করেছেন। তবে এত ব্যর্থতার মধ্যেও ব্যক্তিগত অর্জনে নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেলেন অস্ট্রেলীয় পেসার। বিশ্বকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের রেকর্ড গড়েছেন তিনি।

১০ ইনিংসে ১৮.৫৯ গড়ে ২৭ উইকেট নিয়েছেন স্টার্ক। এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি তিনিই। তার পরেই আছেন বাংলাদেশের মোস্তাফিজুর রহমান। ৮ ইনিংসে ২৪.২০ গড়ে ২০ উইকেট শিকার করেছেন কাটারমাস্টার। তবে বাংলাদেশ বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয়ায় স্টার্কের রেকর্ডের জন্য হুমকি নন মোস্তাফিজ। তবে ফাইনালে উঠা ইংল্যান্ডের পেসার জোফরে আর্চার ১৯ উইকেট নিয়ে আছেন তালিকার তিন নম্বরে। স্টার্ককে ধরতে হলে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তাকে নিতে হবে ৭টি উইকেট। যা মোটেও সহজ কাজ নয়। আর চার নম্বরে থাকা নিউজিল্যান্ডের লোকি ফার্গুসনের জন্য কাজটা আরো কঠিন। কারণ তার সংগ্রহে আছে ১৮টি উইকেট।

রেকর্ড গড়তে স্টার্ক পেছনে ফেলেছেন স্বদেশী কিংবদন্তী গ্লেন ম্যাকগ্রাথকে। ২০০৭ সালে ২৬ উইকেট নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ জয়ে বড় ভূমিকা রেখেছিলেন গ্লেন ম্যাকগ্রাথ। ওই আসরেই আরেক অস্ট্রেলিয়ান শন টেইট এবং শ্রীলঙ্কা স্পিন জাদুকর মুত্তিয়া মুরালিধরন নিয়েছিলেন ২৩টি করে উইকেট।

তার আগের আসরে ২৩ উইকেট শিকার করেছিলেন লঙ্কান পেসার চামিন্দা ভাস। ২০১৯ এ এসে সবার উপরে স্টার্ক। অন্তত

বিশ্বকাপের এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারিরা:
মিচেল স্টার্ক ২৭
গ্লেন ম্যাকগ্রাথ ২৬ (২০০৭)
চামিন্দা ভাস ২৩ (২০০৩)
শন টেইট ২৩ (২০০৭)
মুত্তিয়া মুরালিধরন ২৩ (২০০৭)