ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ হচ্ছে ১২ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে

বেসরকারি ৩২টি বিশ্ববিদ্যালয়কে শোকজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এদের মধ্যে ১২টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণে কোনো ধরনের উদ্যোগ না নেয়ায় সেগুলোতে শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হবে।

রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে উচ্চপর্যায়ের এক বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন বলেন, ‘৫১টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ১৯টি স্থায়ী ক্যাম্পাসে কার্যক্রম শুরু করেছে। বাকি ৩২টির মধ্যে ১২টি ন্যূনতম কোনো উদ্যোগ নেয়নি। ওইসব প্রতিষ্ঠানে আমরা ছাত্রছাত্রী ভর্তি বন্ধ করে দেব। তবে এমন কঠোর সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে তাদের কাছ থেকে ব্যাখা চাওয়া হবে যে, কেন তারা (কর্তৃপক্ষ) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা ও আইনের বিধান কেন প্রতিপালন করেনি।’

সচিব বলেন, আমরা এমন সিদ্ধান্তের জন্য ভর্তি হওয়া ছাত্রছাত্রীদের কোনো ক্ষতি বা সমস্যায় ফেলতে চাই না। তারা তাদের শিক্ষাজীবন অব্যাহত রাখবে। ভর্তি হওয়া বিশ্ববিদ্যালয়েই তারা লেখাপড়া করতে পারবে।’

সচিব আরও বলেন, ‘শুধু উল্লিখিত ১২টিই নয়, স্থায়ী ক্যাম্পাসে না যাওয়া, বার্ষিক নিরীক্ষা প্রতিবেদন না নেয়া বা আইন লঙ্ঘন করা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কাছেও ব্যাখা চাওয়া হবে। তারা যদি সন্তোষজনক জবাব দিতে না পারে, তাহলে আইন অনুযায়ী এবং ইতিপূর্বে মন্ত্রণালয় ও ইউজিসি থেকে পাঠানো পত্রে নির্দেশনা মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

উল্লেখ্য, ২০১০ সাল থেকে এসব বিশ্ববিদ্যালয়কে এখন পর্যন্ত ছয়বার আলটিমেটাম দেয়া হয়েছে। এর আগে ২০১২, ২০১৪, ২০১৫ এবং ২০১৬ সালেও আলটিমেটাম দেয়া হয়। প্রতিষ্ঠার পর ন্যূনতম সাত বছর পূর্ণ হওয়া বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে দেয়া আলটিমেটাম ৩১ ডিসেম্বর শেষ হয়।

Leave a Reply