ভারতে ঝড়ে নিহত ৬৭, সতর্কতা জারি

ভারতের উত্তরাঞ্চল, পূর্বাঞ্চল ও দক্ষিণাঞ্চলজুড়ে বয়ে যাওয়া বজ্রঝড় ও বৃষ্টিপাতে অন্তত ৬৭ জন মারা গেছেন।

রোববার এসব অঞ্চলজুড়ে প্রবল ধূলিঝড়, বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হয়; এতে গাছপালা উপড়ে যায় ও দেয়াল ভেঙে পড়ে বলে জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি।

শুধু উত্তর প্রদেশেই অন্তত ৩৮ জন মারা গেছেন। পশ্চিমবঙ্গে মারা গেছেন আরও ১২ জন।

পাশাপাশি অন্ধ্রপ্রদেশ নয় জন, তেলেঙ্গানায় তিন জন এবং রাজধানী দিল্লিতে পাঁচ জন মারা গেছেন।

উত্তর প্রদেশের সম্বলপুড়ে বজ্রপাতের সময় আগুন ধরে প্রায় ১০০টি বাড়ি পুড়ে যায়। অন্ধ্রতে নিহতদের অধিকাংশই শ্রীকাকুলাম জেলার বাসিন্দা। তেলেঙ্গানায় নিহতরা সবাই কৃষক বলে জানিয়েছে কর্মকর্তারা।

পশ্চিমবঙ্গে নিহত ১২ জনের সবার বাড়ি দক্ষিণের জেলাগুলোতে। বজ্রপাতে ও ঝড়েই তাদের মৃত্যু হয়। নিহতদের মধ্যে চারটি শিশু রয়েছে।

এই শিশুরা ঝড়ের সময় আম কুড়াতে বাইরে গিয়েছিল। সেখানে বজ্রপাতে তাদের মৃত্যু হয়।

দিল্লিতে নিহত পাঁচ জনের মধ্যে এক নারী রয়েছেন। বৃহত্তর নোদিয়া এলাকা দিয়ে স্কুটার চালিয়ে যাওয়ার সময় তার ওপর একটি বিলবোর্ড ভেঙে পড়ে, এতে ওই নারী নিহত ও তার ছেলে আহত হন।

ঝড়ের কারণে রোববার সন্ধ্যায় দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কার্যক্রম এক ঘন্টারও বেশি সময় বন্ধ রাখা হয়। সে সময় এই বিমানবন্দরগামী প্রায় ৭০টি ফ্লাইটকে অন্য দিকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় বলে জানিয়েছে এক কর্মকর্তা।

এক সতর্কবার্তায় ভারতের আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, পরবর্তী ৪৮ থেকে ৭২ ঘন্টার মধ্যে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চজুড়ে বজ্রসহ ঝড় বয়ে যেতে পারে।

ঝড়, বৃষ্টি, বজ্রপাতে নিহতদের জন্য গভীর শোক প্রকাশ করে নিহতদের পরিবার ও আহতদের সব ধরনের সহায়তার নির্দেশ দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

চলতি মাসের প্রথমদিকে উত্তর প্রদেশ ও রাজস্থানসহ ভারতের পাঁচটি রাজ্যজুড়ে বয়ে যাওয়া ধূলিঝড় ও বৃষ্টিপাতে শতাধিক লোক নিহত হয়েছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *