ভালোবাসার রঙ ফোটান চোখ ও ঠোঁটে

ভালোবাসা দিবস মানেই ভালোবাসার মানুষটির জন্য নিজেকে তৈরি করা। তাই আপনার ভালোবাসা দিবসের সাজ এমন হওয়া উচিৎ যেন আপনার সাজ পোশাকেও যেন ভালোবাসার কথা বলে। আর নারীদের সাজের আসল ট্রিক্সই হচ্ছে চোখ আর ঠোঁট। চোখ ও ঠোঁটের সাজ সুন্দর হলে যেমন আপনাকে মোহনীয় করে তুলে, ঠিক তেমনে খারাপ চোখ ও ঠোঁটের সাজ আপনাকে করে দিবে ঠিক এর উল্টোটা। তাই এই দুই সাজের ব্যাপারে একটু সতর্ক থাকতে হবে। আসুন আজ আমরা তাহলে জেনে নেই ভালোবাসা দিবসে চোখ ও ঠোঁট সাজানোর বিশেষ কিছু টিপস।

চোখের সাজ:
প্রথমেই আপনাকে চোখের রং বুঝে আইস্যাডোর রং নির্বাচন করতে হবে। চোখের রং এর সাথে কন্ট্রাস্ট করে এমন আইস্যাডো ব্যবহার করলে সাধারণত ভালো দেখায়। কালো বা গাঢ় রং চোখের জন্যে ধুসর,নীল,সবুজ এবং বেগুনী রংয়ের সেড বেশি মানিয়ে যায়। আর হালকা রংয়ের চোখের সংগে তামাটে, বাদামী বা ব্রঞ্জ সেড ভালো মানায়। প্রথমে হালকা করে আইস্যাডো দিতে হবে। তারপর আস্তে আস্তে গাঢ় করতে হবে।

চোখের মেকাপে আই লাইনার দেয়াটাও একটা দক্ষতার কাজ। কারণ আই লাইনারই আপনাকে চোখকে দেবে আসাধারণ একটা লুক। আপনার চোখের আকৃতি ভেদে লাইনার প্রয়োগ ভিন্ন হতে পারে। যেমন গোলাকৃতি কিংবা ছোট চোখের জন্যে শুধুমাত্র বাইরের কোনায় অথবা শুধু উপরের পাতায় দিলেই চলে। আই পেন্সিল দিয়ে আঁকা লাইনের উপরে একটু পাউডার দিলে লাইনটি আর ছড়িয়ে যাবেনা এবং দীর্ঘস্থায়ী হবে।

মাশকারা ব্যবহার করার আগে সম্ভব হলে আইল্যাস কার্লার দিয়ে চোখের পালকগুলো একটু ঘনকরে ও কোকড়া নিতে পারেন। মাশাকারা আপনার চোখকে একটা ডেফিনেশন দেবে।

আপনার চুলের রং থেকে এক সেড হালকা আইব্রো পেন্সিল দিয়ে ভ্রুটা ভালো করে এঁকে নিন। মনে রখবেন চুলের রং এর চেয়ে গাঢ় সেডের আইব্রো ব্যবহার করলে খুবই বেমানান লাগে।

চোখের নিচে কোনে কালোদাগ বা ডার্কসার্কেল থাকলে কন্সিলার দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। মনে রাখতে কন্সিলারের রং যেন ত্বকের রংএর সাথে ভালো করে ব্লেন্ড হয়ে যায়।

ঠোঁটের সাজ:
গায়ের রঙের ওপর নির্ভর করে ব্যবহার করুন লিপস্টিক। দিনের বেলা হালকা পিংক, ব্রাউন বা ন্যাচারাল যেকোনো শেড ব্যবহার করুন আর রাতে লালচে মেরুন, কফি, পার্পল শেড ব্যবহার করুন। গরমে কড়া লাল লিপস্টিক ব্যবহার না করাই ভালো।

রং চাপা হলে: মেরুন, ওয়াইন, রেড, ব্রাউন, কফি_এসব রং ভালো মানাবে।

রং উজ্জ্বল হলে: পিংক, বেগুনি ও হালকা বাদামির যেকোনো শেড বেছে নিন।

পাতলা ঠোঁট: ঠোঁট ভরাট দেখাতে ঠোঁটের স্বাভাবিক আউটলাইন থেকে একটু বাইরে লাইন টানুন। এবার নিউট্রাল শেডের লিপস্টিক ব্যবহার করুন। ঠোঁট দেখতে ভরাট লাগবে।

পুরু ঠোঁট: ফাউন্ডেশন ও কনসিলারের সাহায্যে ঠোঁটের ন্যাচারাল আউটলাইন ব্লেন্ড করুন। মোটা ঠোঁটে গ্লসি লিপস্টিক ব্যবহার না করে ম্যাট লিপস্টিক ব্যবহার করুন।

অসমান ঠোঁট: ওপরের ঠোঁট নিচের ঠোঁটের চেয়ে পাতলা হলে ওপরের দিকের আউটলাইন একটু বাইরে থেকে টানুন। ওপরের ঠোঁটের ভি শেপ জায়গায় একটু গাঢ় করে লাইন টানুন। এবার গাঢ় শেডের ম্যাট লিপস্টিক ব্যবহার করুন।

কিছু টিপ:
. লিপস্টিক কেনার আগে হাতের তালুর উল্টো পিঠে একটু লাগিয়ে দেখুন আপনার ত্বকের সঙ্গে মিলছে কি না। ত্বকের কাছাকাছি শেড কেনার চেষ্টা করুন।
. মুখে খুব গাঢ় মেক-আপ থাকলে সব সময় হালকা শেডের লিপস্টিক দিন।
. ঠোঁটের রং ঠিক রাখতে রাতে শোয়ার আগে ঠোঁটে বিটের রস লাগান। দাঁত দিয়ে ঠোঁট কামড়াবেন না। এতে ক্ষতি হয়।
. তুলার প্যাড দিয়ে আলতো করে লিপস্টিক তুলে ভ্যাসলিন লাগান।
. খুব বেশি ড্রাই ঠোঁটে ম্যাট লিপস্টিক না লাগানোই ভালো।

Leave a Reply