মারা গেলো নিজের শেষকৃত্যের জন্য তহবিল সংগ্রহকারী অভিনেত্রী

গুরুতর অসুস্থ একজন নারী, যিনি নিজের শেষকৃত্য অনুষ্ঠানের জন্য প্রায় সাত হাজার পাউন্ড তহবিল সংগ্রহ করেছিলেন, তিনি মারা গেছেন।

যুক্তরাজ্যের অভিনেত্রী শার্লি হেলারকে যখন চিকিৎসকরা কয়েকমাসের আয়ু বেধে দেন, তখন তিনি নিজের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার জন্য ওই তহবিল তোলা শুরু করেছিলেন।

গত অক্টোবরে বুকে ব্যথা শুরু হয়ে চিকিৎসকের কাছে গেছে চিকিৎসকরা তাকে জানান, তিনি আর মাত্র পাঁচ সপ্তাহ বেঁচে আছেন। এরপর নিজের শেষকৃত্যানুষ্ঠান আয়োজনের জন্য তহবিল সংগ্রহের ওই কাজ শুরু করেন তিনি।

এর কারণ হিসাবে অভিনেত্রী শার্লি বলেছিলেন, তার ১৬ বছর বয়সে ভাইকে হারিয়েছে পরিবার।

”সুতরাং কোন বাবা-মায়ের ক্ষেত্রে এমন হওয়া উচিত না যে, তাদের সব সন্তানের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার কাজ তারা করবেন।”

ওয়েব ভিত্তিক নেটফ্লিক্সে সম্প্রতি মুক্তি পাওযা ‘আউট’ল কিং’ চলচ্চিত্রে তিনি একজন গ্রামবাসীর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। তার আশা ছিল, সেটির সম্প্রচার তিনি দেখে যেতে পারবেন।

কিন্তু চলচ্চিত্রটি মুক্তির দুইদিন আগে, বুধবার তিনি মারা যান।

তার তহবিল সংগ্রহের পাতায় একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ”চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় মিস হেলার ঘুমের ভেতরেই মারা গেছেন।”

”সবার সহায়তা এবং অনুদানের জন্য শার্লি সবার কাছে কৃতজ্ঞ ছিল, যা তার শেষ সপ্তাহগুলোকে চমৎকার করে তুলেছিল।”

২০১৭ সালে প্রথম ফুসফুসে টিউটার ধরা পড়ে শার্লি হেলারের। তবে এ বছরের সেপ্টেম্বরে তিনি বলেছিলেন, টিউমারটি নিশ্চিহ্ন হয়ে যাচ্ছে এবং তিনি খুব তাড়াতাড়ি নিউক্যাসল যেতে পারবেন, যেখানে তিনি একজন বসবাস করতেন।

মৃত্যুর কিছুদিন আগে মিস হেলার বলেছিলেন, ” আমার বাবা-মা এর আগেই একটি সন্তান হারিয়েছে-১৯৯৯সালে আমার ভাই মারা গেছে। সুতরাং এর ধরণের দুঃখের ঘটনা তাদের জন্য আগেও ঘটেছে।”

অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার জন্য তহবিল সংগ্রহের উদ্যোগ সম্পর্কে তিনি বলেছেন, ”তারা আবার একই ধরণের পরিস্থিতিতে পড়বে, এটা ভাবতেই আমার খারাপ লাগছে। কারো নিজের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার পরিকল্পনা করা হয়তো উচিত নয়, কিন্তু আমি তাদের ওপর সেই চাপ কমিয়ে দিতে পারি, এবং আমার বাবা-মায়ের জন্য আরেকটু সহজ করে দিতে পারি, আমি অবশ্যই তা করবো।”

৩০০ জনের বেশি মানুষ তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার জন্য ৬৯৫৬ পাউন্ড দিয়েছেন, যা দিয়ে শার্লি হেলারের বাবা-মা, এলিজাবেথ এবং গর্ডন অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার ব্যয়ভার বহন এবং স্কটল্যান্ডে আসার খরচ বহন করতে পারবেন।

মৃত্যুতে যেমন অনেক দাতা শোক জানিয়েছেন,আবার অনেকে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় যেকোনো সহায়তা করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

একজন দাতা, মার্টিন রবসন মিস হেলারকে চিনতেন না। কিন্তু লিখেছেন: ”আমি তোমার কথা শুনেছি রেডিও নিউক্যাসলে, এবং তোমার জন্য খুবই খারাপ লাগছে। তোমার ক্যান্সারের কথা শুনে আমার কান্না পেয়েছে। তবে তুমি খুবই সাহসী ছিলে। আশা করি, যেরকম শেষকৃত্যানুষ্ঠান তুমি আশা করেছো, এই অর্থে তেমনটাই তুমি পাবে।”