মায়ের মৃতদেহের সঙ্গে সেলফি!

ঘটনা কিংবা দুর্ঘটনা যাই হোক না কেন, সেলফি তোলা বর্তমানের সবচেয়ে পরিচিত দৃশ্য। অনেকে ঘুম থেকে উঠে কিংবা ঘুমানোর আগ মূহুর্তে, এমনকি খাওয়ার সময় কিংবা প্রার্থনায় বসেও সেলফি তুলতে মগ্ন হয়ে যান। সেলফি তুলতে গিয়ে দুর্ঘটনা শিকার হওয়াসহ প্রাণহানীর মতো ঘটনাও প্রায়ই ঘটে।

তবে কেউ শ্মশানে রাখা মৃত মায়ের সঙ্গে সেলফি তুলছেন এমন নজির সম্ভবত আগে ঘটেনি। এবার সেই ঘটনাই ঘটিয়েছেন ভারতের পশ্চিম মেদিনীপুরের দাসপুরের বাসিন্দা গণেশ দাস।

মৃত মায়ের সঙ্গে তোলা সেই সেলফি তিনি আবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও শেয়ার করেছেন। সঙ্গে সঙ্গেই সেই ছবি ভাইরাল হয়ে গেছে। শুরু হয়েছে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়।

আনন্দবাজারে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে,  গণেশ দাস স্বর্ণালঙ্কার তৈরির কাজ করেন। কাজের সূত্রে তাকে থাকতে হয় অন্য রাজ্যে। বুধবার রাতে সংবাদ পান তার মা গীতাকে সাপে কামড় দিয়েছে। চিকিৎসার জন্য তাকে কলকাতায় নিয়ে যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়েছে।

মায়ের মৃত্যু সংবাদ পেয়ে যত দ্রুত সম্ভব বাড়ি ফিরে আসেন গণেশ। কিন্তু ততক্ষণে তার দুই ভাই ও বোনেরা সৎকারের মায়ের দেহ নিয়ে শ্মশানে পৌঁছে গেছেন। শুনেই বাড়ি থেকে সোজা শ্মশানে ছুটে যান গণেশ। সেখানে গিয়ে থেকে মায়ের দেহ দাহ করার জন্য বাঁশের খাটিয়ায় শুইয়ে রাখা হয়েছে। এ সময় সেই দেহের সঙ্গেই সেলফি তোলেন গণেশ।

মায়ের দেহ সৎকারের কাজ শেষে সেই সেলফি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেন গণেশ। এর পরই সেই ছবি নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেই সেই সব সমালোচনার জবাব দিয়েছেন গণেশ। তিনি জানান, মাকে খুব ভালবাসতেন তিনি। সে কারণেই তিনি মায়ের মৃতদেহের সঙ্গে এই সেলফি তুলেছেন স্মৃতি হিসাবে।