মিসরের সালাহ নাগরিকত্ব নিলেন চেচনিয়ার!

চেচনিয়া প্রজাতন্ত্রের নাগরিকত্ব পেয়েছেন মোহামেদ সালাহ। বিশ্বকাপে অনুশীলনের জন্য চেচনিয়া প্রজাতন্ত্রের রাজধানী গ্রোজনিতে বেইস ক্যাম্প করেছিল মিসর। এর মধ্যেই বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়েছে মিসরের। সালাহদের তাই গতকাল শুক্রবার বিদায়ী সংবর্ধনা দিয়েছে চেচনিয়ার নেতা রমজান কাদিরভ। এরপরই সালাহকে নাগরিকত্ব দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন কাদিরভ।

রাশিয়ার নিয়ন্ত্রিত চেচনিয়ায় বেস ক্যাম্প করা নিয়ে মিসর ও ফিফার সমালোচনা গত ফেব্রুয়ারি থেকেই হচ্ছে। বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার পর সালাহ কাদিরভের সঙ্গে দেখা করার পর তো সমালোচনার ঝড়ই বয়ে গিয়েছিল। সেটা যেন আরও উসকে দিলেন বিতর্কিত এই নেতা। কাদিরভ জানিয়েছেন, ‘সালাহ এখন চেচনিয়ার একজন সম্মানিত নাগরিক। হ্যাঁ, ঠিকই শুনছেন। আজ (কাল) রাতে আমি মিসর ও লিভারপুলের তারকা মোহামেদ সালাহকে এই সম্মান জানিয়ে ফরমান জারি করছি।’
আল-জাজিরা জানিয়েছে, নৈশভোজে এ ঘোষণার পর সালাহকে চেচনিয়ার পতাকাযুক্ত একটি মর্যাদাপূর্ণ ব্যাজও পরিয়ে দিয়েছেন কাদিরভ। সে সঙ্গে একটি রুপার স্মারক ও চেচনিয়ার ফুটবল দল এফসি আখমত গ্রোজনির একটি জার্সিও দেওয়া হয়েছে। কাদিরভের পিতার স্মরণেই এ ক্লাবের নামকরণ করা হয়েছিল। মিসর দলের মুখপাত্র এ ব্যাপারে এখনো কোনো মন্তব্য করেননি।
রাশিয়া থেকে আলাদা হতে চাওয়া চেচনিয়া নব্বইয়ের দশকে দুবার যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছিল। ২০০৪ সালে সেই চেচনিয়ার দায়িত্ব নেওয়ার পর অতিরক্ষণাত্মক নিয়মকানুন জারি করেন কাদিরভ। তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ বন্ধ করতে সামরিক বাহিনীকেও ব্যবহারের অভিযোগ আছে। বিচারবহির্ভূত হত্যা তো আছেই।
কাদিরভকে এর আগে সালাহ নিজে মিসরের অনুশীলন ক্যাম্প ঘুরিয়ে দেখিয়েছিলেন। তখন সমালোচনা হয়েছিল, একজন বিতর্কিত রাজনৈতিক নেতার সঙ্গে ছবি তুলে সালাহ নিজেকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের সুযোগ করে দিলেন কি না। এখন তো ঘটে গেল আরও বড় ঘটনা। দেখা যাক, এ সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় ফুটবলারদের একজন সালাহর এই ঘটনা নিয়ে কী হয়!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *