মেয়ের সতীত্ব বিক্রি করতে গিয়ে ধরা পড়লেন মা

নিজের ১৩ বছরের মেয়ের সতীত্ব বিক্রি করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়েছে রাশিয়ার এক নারী। এই ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে গোটা রাশিয়া জুড়ে। ১৩ বছরের সেই কন্যাকে সরকারি হোমে রাখা হয়েছে। তার পরিচর্যার জন্য মনোবিদের পরামর্শ নেওয়া হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ৩৫ বছরের সেই নারী রাশিয়ার চেলিয়াবিনস্কের বাসিন্দা। এক সময় স্থানীয় সৌন্দর্য প্রতিযোগিতাও জিতেছিল। কিন্তু বর্তমানে তার আর্থিক অবস্থা খুবই খারাপ। কিছুদিন আগেই নিজের এক বন্ধুর কাছ থেকে সে জানতে পারে দেহব্যবসার সঙ্গে জড়িত চক্রের কথা। যেখানে মেয়েদের সতীত্ব নিলামে ওঠে। টাকার জন্য নিজের ১৩ বছরের কন্যাকে সেখানে নিলামে তোলে সেই নারী।

এই চক্রের খোঁজ বহুদিন ধরে রাশিয়ার পুলিশও চালাচ্ছিল। সেই সুবাদেই ১৩ বছরের নাবালিকার নিলামে ওঠার কথা জানতে পারেন গোয়েন্দারা। সেই নারীর জন্য ফাঁদ পাতা হয়। যে বন্ধুর মাধ্যমে সেই নারী নিজের মেয়ের সতীত্ব নিলামে তুলেছিল তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। বলা হয়, একজন ধনী ক্রেতা পাওয়া গেছে। ১৯,১০০ ব্রিটিশ পাউন্ডের বিনিময়ে সে ১৩ বছরের কন্যার সতীত্ব পেতে চায়। এর জন্য মস্কো আসতে হবে।

নিজের সঙ্গী ও মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে মস্কো চলেও আসে সেই নারী। তাকে এক নির্দিষ্ট স্থানে আসতে বলা হয়। সেখানে মেয়ের সতীত্বের বিনিময়ে টাকা নিতেই হাতেনাতে ধরা হয় এই নারী। প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে পুলিশের জেরার মুখে নিজের দোষ স্বীকার করে নেয় ওই মহিলা।

Leave a Reply