যুক্তরাষ্ট্রে ঠাণ্ডায় নিহত ১১

অন্য বছরগুলোর তুলনায় এবার যুক্তরাষ্ট্রের ঠাণ্ডাটা একটু বেশিই প্রকট আকার ধারণ করেছে। ঠাণ্ডায় এখন পর্যন্ত দেশটিতে কমপক্ষে ১১ জন মারা গেছে। খবর এপি, সিএনএনের।

মৃতের সংখ্যা যাতে আর না বাড়ে সেটির জন্য দেশটির কর্মকর্তারা প্রতিবেশীদের খোঁজখবর নিতে বাসিন্দাদের আহ্বান জানিয়েছে। বিশেষ করে বয়স্ক, অসুস্থ বা যারা একা থাকেন তাদের প্রতি বিশেষ খেয়াল রাখতে বলেছেন তারা।

মিসৌরি অঙ্গরাজ্যের সেন্ট লুইসে এখন তাপমাত্রা স্বাভাবিক চেয়ে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস নিচে আছে। সেখানে ‘ভয়াবহ ঠাণ্ডা’ পড়েছে বলে জানাচ্ছেন মেয়র লিডা ক্রিউসন। তিনি বলেন, যাদের থাকার জায়গা নেই সবার উচিত তাদের সাহায্য করা।

এদিকে এরইমধ্যে দেশটির আবহাওয়া অফিস তুষার ঝড়ের আভাস দিয়েছে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ফ্লোরিডা, দক্ষিণাঞ্চলীয় জর্জিয়া ও ক্যারোলাইনার উপকূলীয় এলাকাগুলো কয়েক ইঞ্চি পুরো বরফে ঢেকে যেতে পারে।

টেনিসির একটি কারাগার নিরাপত্তা কর্মকর্তারা বলেছেন, তারা বহনযোগ্য হিটার, অতিরিক্ত কম্বল ব্যবহার করছেন। সেখানে গরম পানি আসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা এই পদক্ষেপ নেন।

টেক্সাস বা আটলান্টায়ও অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। টেক্সাসে গৃহহীনদের জন্য কাজ করা সংগঠনগুলো কম্বল ও অন্যান্য গা গরম রাখার বস্তু সরবরাহে মানুষজনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

আর আটলান্টার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষগুলো বলছে, হাইপোথেরমিয়া ও ঠাণ্ডাজনিত অন্যান্য রোগীর সংখ্যা বেড়েছে সেখানে।

অন্যদিকে লুইজিয়ানা, মিসিসিপি ও আলাবামায় গরম আশ্রয়স্থল খোলা হয়েছে।

নিহতদের মধ্যে পাঁচজন উইসকনসিন, উত্তর ডাকোটা ও মিসৌরির দুইজন এবং চারজন টেক্সাসের বাসিন্দা

Leave a Reply