রাখাইনে সেনা ট্রাকে হামলায় আহত ৫

রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর একটি ট্রাকে ‘বিচ্ছিন্নতাবাদীদের’ হামলায় পাঁচ সেনা আহত হয়েছেন বলে জানান দেশটির কর্মকর্তারা।

রোহিঙ্গা সঙ্কট: মিয়ানমারের জেনারেল যুক্তরাষ্ট্রের কালো তালিকায় বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম সেনা কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে শনিবার এ খবর প্রকাশ করে।

খবরে বলা হয়, “চরমপন্থি বাঙ্গালি জঙ্গি এআরএসএ শুক্রবার সেনাবাহিনীর একটি ট্রাকে হামলা চালালে কয়েকজন সেনাকে হাসপাতালে নিতে হয়েছে।

“পাহাড় থেকে নেমে আসা প্রায় ২০ জনের ওই দলটি বাড়িতে তৈরি মাইন ও ছোট আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ট্রাকে হামলা চালায়।”

এআরএসএ’র এক মুখপাত্র এই হামলার দায় স্বীকার করেছেন।

বার্তা পাঠানোর একটি সার্ভিসের মাধ্যমে তিনি রয়টার্সকে বলেন, “হ্যাঁ, এআরএসএ মিয়ানমার সেনাবাহিনীর উপর সর্বশেষ হামলার দায় নিচ্ছে।”

মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই জানিয়ে তিনি আরও বলেন, রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের উপর নিপীড়ন বন্ধ করতে তারা এই লড়াই করছে।

গত বছর ২৪ অগাস্ট রাতে মিয়ানমার সীমান্ত পুলিশ ও সেনাবাহিনীর ৩০টি পোস্টে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হামলায় অন্তত নয় নিরাপত্তারক্ষী নিহত হওয়ার পরদিন থেকে রাখাইনে সেনা অভিযান শুরু হয়।

মিয়ানমার সেনাবাহিনী একে জঙ্গি দমন অভিযান বললেও রাখাইনের রোহিঙ্গা মুসলিমরা তাদের উপর নির্যাতন-নিপীড়নের কথা বলেছে।

প্রাণ বাঁচাতে প্রায় সাড়ে ছয় লাখ রোহিঙ্গা সীমান্ত পেরিয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

অনেক রোহিঙ্গা শরণার্থী গুলিবিদ্ধ অবস্থায় বা শরীরে পোড়া ক্ষত নিয়ে বাংলাদেশে এসেছে।

বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মানবতা বিরোধী অপরাধের অভিযোগ এনেছে।

জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংগঠনও মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সমালোচনা করে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি করেছে।

যদিও মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইন রাজ্যে প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ করায় সেখানে কেউ যেতে পারছে না।

এমনকি জাতিসংঘের নিরপেক্ষ পর্যবেক্ষক দলকেও প্রবেশের অনুমতি দেয়নি অং সান সু চি নেতৃত্বাধীন সরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *