রাশিয়া বিশ্বকাপের উল্লেখযোগ্য কিছু পরিসংখ্যান

গত রাতে শেষ হয়ে গেল ২১তম ফুটবল বিশ্বকাপ। শিরোপা জয় করে ফ্রান্স। মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’র ফাইনালে ফ্রান্স ৪-২ গোলে ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে শিরোপা জয় করে।
এবারের আসরে ৮টি গ্রুপে চারটি করে মোট ৩২টি দল অংশ নেয়। গ্রুপ পর্ব শেষে ১৬টি দল শেষ ষোলতে ওঠে এবং গ্রুপ পর্ব থেকে ১৬টি দল বিদায় নেয়। গ্রুপ পর্বে মোট ৪৮টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।
শেষ ষোলতে আটটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।কোয়ার্টারফাইনালে ৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। এরপর দু’টি সেমিফাইনাল, একটি তৃতীয়স্থান নির্ধারনী ও একটি ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। অর্থাৎ সর্বমোট এবারের আসরে মোট ৬৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই ৬৪ ম্যাচ শেষে বিশ্বকাপের কিছু উল্লেখযোগ্য পরিসংখ্যান তুলে ধরা হলো।
মোট দল : ৩২টি।
মোট ভেন্যু : ১২টি।
মোট ম্যাচ : ৬৪টি।
মোট গোল : ১৬৯টি।
প্রতি ম্যাচে গোল গড় : ২ দশমিক ৬৪।
সর্বমোট উপস্থিতি : ৩০ লাখ ৩১ হাজার ৭শ ৬৮।
প্রতি ম্যাচে গড় উপস্থিতি : ৪৭ হাজার ৩শ ৭১।
সর্বোচ্চ উপস্থিতি : রাশিয়া-সৌদি আরব ম্যাচে (৭৮,০১১ জন দর্শক)।
সর্বনি¤œ উপস্থিতি : মিশর-উরুগুয়ে ম্যাচে (২৭,০১৫ জন দর্শক)।
বড় ব্যবধানে জয় : ইংল্যান্ড ৬-১ গোলে হারায় পানামাকে।
এক ম্যাচে সবচেয়ে বেশি গোল : ৭টি (ইংল্যান্ড-পানামা এবং বেলজিয়াম-তিউনিশিয়া)।
সর্বোচ্চ গোলদাতা: হ্যারি কেন (ইংল্যান্ড), ছয় ম্যাচে ৬টি।
লাল কার্ড : ৪টি।
হলুদ কার্ড : ৮৫টি।
হ্যাট্টিক : ২টি (পর্তুগালের ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো ও ইংল্যান্ডের হ্যারি কেন)।
সর্বোচ্চ দলীয় গোল : বেলজিয়াম।
সর্বোচ্চ আক্রমণকারী দল : জার্মানি (২৫২টি)।
সর্বোচ্চ পাস: স্পেন (২০৮৯টি)।
সবচেয়ে বেশি পাস : টনি ক্রুস (জার্মানি) (৩১০টি)।
বেশি সেভ: গিলর্মো ওচোয়া (মেক্সিকো) (১৭টি)।

Leave a Reply