শুভশ্রীকে বিয়ের পর মুখ খুললেন রাজের সাবেক স্ত্রী

তাদের বিচ্ছেদের পর কেটে গেছে ৭ বছর। অতীত ভুলে টালিউডের নায়িকা–সহকর্মী শুভশ্রী গাঙ্গুলির সঙ্গে শুক্রবারই সাতপাকে বাঁধা পড়েছেন পরিচালক রাজ চক্রবর্তী। এতবছর পরে রাজকে মনে করছেন আর এক নারী। তিনি শতাব্দী মিত্র। রাজের প্রথম স্ত্রী।

টালিউড ইন্ডাস্ট্রির সবচেয়ে আলোচিত টাটকা ইভেন্ট হলো রাজ-শুভশ্রীর বিয়ে। এরই মধ্যে ঘনিষ্ঠমহলে মুখ খুললেন শতাব্দী। তার এক বন্ধুর কাছে শতাব্দী জানিয়েছেন, অতীতের যাবতীয় তিক্ততার পরেও শুভশ্রীকে নিয়ে রাজ খুশি থাকুক, এমনটাই চান তিনি।

ভারতের একটি গণমাধ্যমে বলা হয়, ২০০০ সালে একটি টেলিভিশন চ্যানেলের অনুষ্ঠানে পরিচয় হয়েছিল শতাব্দী ও রাজের। পরিচয় থেকে বন্ধুত্ব। বন্ধুত্ব থেকে প্রেম। খুব অল্প সময়ের মধ্যে খুব কাছাকাছি চলে এসেছিলেন তারা।

শতাব্দীর ওই ঘনিষ্ঠ বন্ধু জানান, ‘সেসময়ে রাজ টালিউডে প্রতিষ্ঠা পায়নি। কাজের খোঁজ করছে। কিন্তু খুব একটা সুবিধা করে উঠতে পারছে না। রুদ্রনীল ঘোষের সঙ্গে টালিগঞ্জে একটা বাড়িতে ভাড়া থাকতো। সেই সময় শতাব্দী ওকে অনেক সাহায্য করেছে। টাকা-পয়সা দেয়া, খাবার-দাবার দেয়া, অসুস্থ হলে সেবা করা— সবই করেছে।’

শতাব্দীর আরেকজন বান্ধবীর দাবি, ‘নিজের বাড়ির ফ্রিজ থেকে রাজের জন্য খাবার চুরি করতো শতাব্দী। তারপর বাসে করে সেই খাবার বেহালা থেকে পৌঁছে দিয়ে আসতো রাজের কাছে। আবার কখনও মর্নিংওয়াকে যাবার নাম করে বাড়ি থেকে লুকিয়ে বেরিয়ে ব্রেকফাস্টের টাকা দিয়ে আসতো ওকে। কখনও জলের বোতল, কখনও ওষুধ, কখনও জামাকাপড় কিনে দেয়া, কী করেনি ওর জন্য শতাব্দী!‌ নিজের হাতখরচের টাকা নিঃস্বার্থভাবে খরচ করেছে রাজের জন্য।’

২০০৬ সালে বিয়ে হয় রাজ-শতাব্দীর। যেহেতু রাজের ফিল্মি ক্যারিয়ার তখনও সেভাবে প্রতিষ্ঠিত নয়, তাই বিয়ে নিয়ে প্রাথমিকভাবে মত ছিল না শতাব্দীর অভিভাবকদের। কিন্তু রাজকেই বিয়ে করার জন্য জেদ ধরে বসেছিলেন শতাব্দী। মেয়ের জেদের কাছে হার মানেন অভিভাবকরা। আপন করে নেন রাজকে।

শতাব্দীর বান্ধবী জানান, ‘শতাব্দী রাজের জন্য খুব লাকি ছিল। ওকে বিয়ে করার পরে ‘চিরদিনই তুমি যে আমার’, ‘চ্যালেঞ্জ’, ‘প্রেম আমার’–এর মতো হিট ছবি দিয়েছিল রাজ। ততদিনে রাজকেও ঘরের ছেলে বলে স্বীকার করে নেন শতাব্দীর পরিজনরা। তার জন্য শতাব্দীর মা–বাবাও কম করেননি। এমনকি রাজের শরীর খারাপ হলে সারারাত জেগে সেবাও করেছেন শতাব্দীর মা।

একথা রাজ নিজেও একাধিক জায়গায় স্বীকার করেছেন। এখান থেকেই নাকি সুখি দাম্পত্যে চিড় ধরেছিল। ঘনিষ্ঠমহলে শতাব্দী দাবি করেছিলেন, তার সঙ্গে বিবাহিত সম্পর্কে থাকলেও শুভশ্রীর সঙ্গে প্রেম করতে শুরু করেছিলেন রাজ। সেটা নিয়ে বাড়িতে অশান্তিও হয়। এমনকি, শুভশ্রীর বাড়িতে ফোন করে এই সম্পর্ক থেকে সরে আসার অনুরোধ করেছিলেন শতাব্দী। শুভশ্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে নাকি বলা হয়, বয়স কম, তাই ভুল করে ফেলেছেন শুভশ্রী। তিনি এই সম্পর্ক থেকে সরে আসবেন। এরই মধ্যে গুজব রটে শুভশ্রী নাকি প্রেম করছেন আর এক নায়ক দেবের সঙ্গে।

কিন্তু তবু আশ্বস্ত হতে পারেননি শতাব্দী। পেশায় সংবাদমাধ্যমের কর্মী শতাব্দীর এক বান্ধবী বলছেন, ‘ততদিনে আর এক নায়িকা পায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল রাজের। দিনের পর দিন একসঙ্গে থাকতে শুরু করেছিলেন তারা। শতাব্দীর সঙ্গে অত্যন্ত দুর্ব্যবহার করতেন রাজ। তারপরও বলিউডের এক বাঙালি গায়িকা এবং আরও কয়েকজন মহিলার সঙ্গে নাম জড়িয়েছিল রাজের।’ অবশেষে বিরক্ত হয়েই নাকি আলাদা হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন শতাব্দী। ২০১১ সালের শেষের দিকে বিবাহবিচ্ছেদ হয় তাদের। তবে এতকিছুর পরেও নাকি শতাব্দী বীতশ্রুদ্ধ নন রাজের ওপরে।

ঘনিষ্ঠমহলে তিনি বলেছেন, ‘রাজ খুব বিচিত্র একটা মানুষ। একমুহূর্তে এমন একটা কাজ করছে, যেটা দেখে ওর প্রতি শ্রদ্ধা জাগছে। পর মুহূর্তেই এমন একটা কাজ করছে, যেটা দেখে মনে হচ্ছে, কোনো মানুষ এমন কাজ করতে পারে? কখনও ওকে ভালোবাসতে ইচ্ছা করতো। আবার কখনও ওকে ঘৃণা করা ছাড়া কোনো উপায় থাকতো না।’ তাই বিচ্ছেদের পরেও মৌখিক ভদ্রতা নষ্ট করেননি রাজ ও শতাব্দী। আজও যখন কোনো পার্টি বা প্রিমিয়ারে দেখা হয়, রাজ যে সৌজন্য দেখান এবং যথেষ্ট ভালোভাবে কথা বলেন, সেকথা স্বীকার করেছেন শতাব্দী। তিনি জানান, ‘রাজকে আমি এখনও ভালোবাসি। কখনই চাইব না ওর কোনো ক্ষতি হোক। শুভশ্রীর সঙ্গে ও নতুন জীবন শুরু করেছে। ওদের জীবন সুখে কাটুক। আমরা এখন অনেক পরিণত। দু’জন পরিণত মানুষের মতোই অতীতটাকে সামলে নিতে চাই।’

সূত্র: আরটিভি অনলাইন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *