শেষ সময়ের গোলে আলাভেসের মাঠে রিয়ালের হার

নিজেদের যেন হারিয়ে খুঁজছে রিয়াল মাদ্রিদ। দুর্দশা এখন স্প্যানিশ জায়ান্ট দলটির নিত্যদিনের সঙ্গী। আর তা না হলে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় চার ম্যাচে জয়শূন্য কীভাবে হয় হুলেন লোপেতেগির শিষ্যদের। সর্বশেষ লা লিগার ম্যাচে তো দেপোর্তিভো আলাভেসের বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরেই গেল রিয়াল! এই চার ম্যাচে রিয়াল কোনো গোলও করতে পারেনি।

শনিবার আলাভেসের মাঠে খেলতে গিয়ে ম্যাচে দাপট দেখালেও শেষ মুহূর্তে গোল হজম করে আরেকটি হতাশা নিয়ে মাঠ ছাড়ে রিয়াল। নির্ধারিত সময়ের পর যোগ করা সময়ে আলাভেসের হয়ে গোলটি করেন মানু গার্সিয়া।

রিয়ালের বিপক্ষে ২০০০ সালের পর প্রথমবার জয় পেল আলাভেস। আর ঘরের মাঠে লা লিগার ম্যাচে তো সেই ১৯৩১ সালের পর গ্যালাকটিকোদের বিপক্ষে প্রথম জয়।

এদিন শুরুটা অবশ্য রিয়াল আক্রমণ দিয়েই করে। এমনকি পুরো ম্যাচে আধিপত্য বিস্তারও করে তারা। যেখানে বল পজিশন লস ব্ল্যাঙ্কসদের ছিল ৭০ শতাংশ। এছাড়া প্রতিপক্ষের জালে ৬টি শটও করেছে। তবে সব পরিসংখ্যান ভুল প্রমাণ করে শেষ হাসিটা স্বাগতিকরাই হাসে।

সাধারণ দৃষ্টিতে দর্শকরা ম্যাচটি ড্রই দেখছিল। তবে হিসেব পাল্টে দিয়ে রিয়াল শিবিরকে হতাশ করেন দ্বিতীয়ার্ধের বদলি হয়ে মাঠে নামা গার্সিয়া। নির্ধারিত ৯০ মিনিটের পর অতিরিক্ত ৫ মিনিটের মাথায় কর্ণার থেকে রুবেন সোবরিনোর হেড রিয়াল গোলরক্ষক থিবাউ কোর্তোয়া এক হাতে ফেরানোর চেষ্টা করলে পেয়ে যান গার্সিয়া। তার হেড সার্জিও রামোসকে ফাঁকি দিয়ে জালে জড়ায়।

গোল হজমের পর প্রতিপক্ষকে শোধ দেওয়ার মতো আর সময়ই ছিল না রিয়ালের। কেননা এরপরই রেফারি শেষ বাঁশি বাজিয়ে দেন। শেষে ১-০ গোলের হার নিয়েই মাঠ ছাড়ে লোপেতেগির শিষ্যরা।

লিগে ৮ ম্যাচ খেলে ৪ জয় ২ হার ও সমান ড্রয়ে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয়স্থানে আছে রিয়াল। এক ম্যাচ কম খেলে সমান পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বার্সেলোনা। আর এ ম্যাচ জিতে ৮ খেলায় ১৪ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয়স্থানে আলাভেস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *