সংসদে পাল্টাপাল্টির মধ্যে বাড়ল দ্রুত বিচার আইনের মেয়াদ

আওয়ামী লীগ-বিএনপির পালাপাল্টির মধ্যে বহু আলোচিত ‘দ্রুত বিচার আইন’ আরও পাঁচ বছর চালু রাখতে সংসদে বিল পাস হয়েছে।

দেড় দশক আগে বিএনপি আমলে আইনটি প্রণয়নের সময় বিরোধিতা ছিল যাদের, সেই আওয়ামী লীগই আইনটির মেয়াদ আরও বাড়িয়েছে। অন্যদিকে সেই বিএনপি এবার আইনটি পাসের সময় আপত্তি দিয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জমান খাঁন কামাল মঙ্গলবার ‘আইন-শৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুতবিচার) (সংশোধন) বিল- ২০১৯’ সংসদে পাসের প্রস্তাব করেন।

২০০২ সালে দ্রুত বিচার আইন করেছিল বিএনপি-জোট সরকার। তখন এই আইনের সমালোচনা করেছিল তৎকালীন বিরোধী দল আওয়ামী লীগ। আজ মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে ষষ্ঠ দফায় আইনটির মেয়াদ আরও ৫ বছর বাড়াল আওয়ামী লীগ সরকার। এবার সংসদে এই আইনের প্রয়োজনীয়তা ও প্রয়োগ নিয়ে প্রশ্ন তুলে এর বিরোধিতা করল বিএনপি।

আওয়ামী লীগ বিএনপির পাল্টাপাল্টি বিরোধিতার মধ্য দিয়ে আজ বহুল আলোচিত ‘আইনশৃঙ্খলা বিঘ্নকারী অপরাধ (দ্রুতবিচার) (সংশোধন) বিল- ২০১৯’ পাস হয়। এতে আইনটির মেয়াদ আরও ৫ বছর বাড়ানো হয়। আইনটি ২০২৪ সাল পর্যন্ত চলবে।

আজ বিল পাসের আগে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি একে অন্যের বিরুদ্ধে এই আইনের অপপ্রয়োগের অভিযোগ আনে। আর জাতীয় পার্টি বলেছে, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি—দুই পক্ষই যে কালো আইন করেছে, তার প্রমাণ তারা সংসদে দিয়ে গেল।