সম্প্রচার নীতিমালা ও আইন আলাদা করা হবে : তথ্যমন্ত্রী

বহুল আলোচিত সম্প্রচার নীতিমালা ও আইন আলাদা করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। আজ শুক্রবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) টিএসসিতে ব্রডকাস্ট জার্নালিস্ট সেন্টারের (বিজেসি) সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

সম্প্রচার সম্মেলন উদ্বোধন করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, লেখক এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাংবাদিকরা। তথ্যমন্ত্রী বলেন, টেলিভিশনের জন্য আলাদা সম্প্রচার নীতিমালা ও আইন করা হবে।

হাসান মাহমুদ বলেছেন, ‘আমি আপনাদের সমস্যা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল আছি। এগুলো সমাধান করবো। আপনাদের মতামত নিয়ে এগুলো সমাধান করা হবে।

তথ্যমন্ত্রী সেখানে আরও বলেন,‘বিদেশি চ্যানেল বাংলাদেশে প্রচারের সময় বিদেশি বিজ্ঞাপন প্রচার আইনগত অপরাধ। এটা বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবে সরকার।’ টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে যেন সঠিক সময়ে বেতন হয় সে বিষয়ে মালিকদের নজর দেওয়ার আহ্বান জানান তথ্যমন্ত্রী।

এই সম্মেলনে সাংবাদিকদের অবস্থার উন্নয়নে বিভিন্ন প্রস্তাব করা হয়েছে। এর মধ্যে আছে কল্যাণমূলক ও ঝুঁকি মোকাবেলা স্বাস্থ্যবীমা, অসুস্থতা সহায়তা প্রকল্প, শিক্ষা সহায়তা কর্মসূচি, সম্প্রচার কর্মীদের ওয়েজ বোর্ড এর আওতায় আনা ইত্যাদি। সম্মেলনে অভিযোগ তোলা হয়, দেশের বিজ্ঞাপন চলে যাচ্ছে বিদেশি চ্যানেলে। তথ্য মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও বন্ধ হচ্ছে না এসব কার্যক্রম। এজন্য যথাযথ উদ্যোগ নিতে হবে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রচার গণমাধ্যম কর্মীদের কল্যাণ, পেশাগত, আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধি, ঝুঁকি মোকাবেলা ও নিরাপত্তা বিধান এবং পেশা ও শিল্পের উন্নয়ন সাধনে ইতোমধ্যে সম্প্রচার সাংবাদিক কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তাদের উদ্যোগের এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলো।